রণক্ষেত্র যাদবপুর, সিনেমা দেখানো নিয়ে পড়ুয়া-বিজেপি হাতাহাতি

0
63

খবর অনলাইন:  একটি সিনেমার আয়োজনকে ঘিরে রণক্ষেত্র হয়ে উঠল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। এক দিকে যাদবপুরের পড়ুয়ারা, অন্য দিকে এবিভিপি-আরএসএস-বিজেপি। রাতে ট্যাক্সি নিয়ে ছুটে এলেন উপাচার্য। শেষ পর্যন্ত তাঁর মধ্যস্থতাতেই শুক্রবার গভীর রাতে শান্ত হয় রণাঙ্গন।

‘হেট স্টোরি’ খ্যাত পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রীর ‘বুদ্ধ ইন আ ট্র্যাফিক জ্যাম’ ছবিটি দেখানো নিয়ে গণ্ডগোলের সূত্রপাত। ‘থিঙ্ক ইন্ডিয়া’ নামে একটি সংগঠন এর জন্য ত্রিগুণা সেন অডিটোরিয়াম ভাড়া নেয়। শেষ মুহূর্তে বৃহস্পতিবার বিকেলে হল কর্তৃপক্ষ যাদবপুর অ্যালামনি অ্যাসোসিয়েশন বুকিং বাতিল করে। ‘থিঙ্ক ইন্ডিয়া’ ক্যাম্পাসের মাঠে ছবি দেখাবে বলে ঘোষণা করে।

বিকেল ৫টায় বিবেক অগ্নিহোত্রী ক্যাম্পাসে এলে পড়ুয়ারা কালো পতাকা নিয়ে বিক্ষোভ দেখান। এরই মধ্যে পরিচালক ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিয়ে গাড়ি থেকে নেমে পড়েন। বিকেল সাড়ে ৫টা নাগাদ বিজেপি, এবিভিপি ও আরএসএস-এর স্থানীয় নেতা-কর্মী-সমর্থকরা ক্যাম্পাসে জড়ো হন। তখনই পড়ুয়াদের সঙ্গে তাঁদের দফায় দফায় বচসা বাধে এবং হাতাহাতি হয়।

ইতিমধ্যে মাঠে ছবি দেখানো চলতে থাকে। পাশাপাশি ক্যাম্পাসের ভিতরে অন্য একটি জায়গায় ‘মুজফ্‌ফরনগর বাকি হ্যায়’ দেখাতে শুরু করেছিলেন পড়ুয়ারা। রাত ৮টা নাগাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের যুগ্ম-রেজিস্ট্রার পার্থপ্রতিম লাহিড়ী দু’টি ছবিই বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। এর পর সিনেমা দেখানো, না-দেখানো নিয়ে ফের গোলমাল শুরু হয়। ইতিমধ্যে অভিযোগ ওঠে, ছাত্রীদের শ্লীলতাহানি করেছে ‘থিঙ্ক ইন্ডিয়া’র কয়েক জন। অভিযুক্তদের আটক করে রাখা হয়। অভিযোগ, তাঁদের নাকি মারধর করা হয়। ‘আটক’ সমর্থকদের ছাড়াতে হাজির হন বিজেপি নেত্রী রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, স্থানীয় বিজেপি কাউন্সিলর ও তাঁর স্বামী।

উপাচার্য এসে দু’ পক্ষের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি ‘আটক’ চার জনকে ছেড়ে দেওয়ার ব্যাপারে বিজেপি কর্মীদের আশ্বস্ত করেন। ওই চার জনের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হবে বলে পড়ুয়াদের আশ্বস্ত করেন। পরে অভিযুক্ত চার জনের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে যাদবপুর থানায়।

ছবি: সৌজন্যে পিটিআই

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here