রোহিত ভেমুলার মৃত্যুর এক বছর : বঞ্চনার ঐতিহ্য

0
150

sayantani-adhikariসায়ন্তনী অধিকারী

রোহিত ভেমুলা। এই নামটা গত এক বছরে আমাদের কাছে খুবই পরিচিত হয়ে উঠেছে। যদিও এই পরিচিতি কাম্য নয়, তা-ও হায়দরাবাদ ইউনিভার্সিটির এই ছাত্রের নাম এখন সমসাময়িক পরিস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল যে কোনো লোকই বোধহয় জানেন। গত বছর এই রকম সময়েই দলিত হওয়ার কারণে বিভিন্ন ভাবে অপমানিত হয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন রোহিত। তাঁকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অপরাধের অভিযোগ ওঠে এবং অভিযুক্তদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভাবে ছিলেন হায়দরাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর আপ্পা রাও, যে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ছিলেন রোহিত নিজে এবং কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রী বন্দারু দত্তাত্রেয়। কিন্তু তাঁর মৃত্যুর এক বছর পুর্ণ হওয়ার পরও অভিযুক্তদের কোনো ভাবে শাস্তি তো হয়ইনি, বরং কেন্দ্রে অবস্থিত সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ বার বার এই আভাসই দিয়েছে, যে রোহিতের মৃত্যু রহস্যের সমাধানে তাঁরা বিশেষ আগ্রহী নন। বিশেষত যেখানে প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং দলিতদের আক্রমণ করতে হলে আগে তাঁকে আক্রমণ করা হোক, এমন দাবি করেই  পরে রোহিতের মৃত্যুর ক্ষেত্রে অভিযুক্ত আপ্পা রাওকে ‘মিলেনিয়াম প্লাক সম্মান’-এ ভূষিত করেন, সেখানে শুধুমাত্র তাঁর মুখের কথার উপর গুরুত্ব আরোপ করে সুবিচারের আশা করা মরীচিকাসম মনে হওয়াই স্বাভাবিক। এ প্রসঙ্গে মনে রাখা ভালো যে আপ্পা রাওয়ের নিয়োগ নিয়ে অনেক আগেই প্রশ্ন উঠেছে এবং এমনও শোনা যায় কোনো এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর অঙ্গুলিহেলনেই নাকি ২০১৫-য় আপ্পা রাও আরও ৩৫ জন প্রার্থীকে পিছনে ফেলে হায়দরাবাদ ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর পদ লাভ করেছিলেন। ফলে, তাঁর অপসারণ বা তাঁর বিরুদ্ধে নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়ার কতখানি সম্ভাবনা আছে তা-ই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

রোহিতের মৃত্যুর ঠিক পরও মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে তদন্ত করার বদলে সরকারের বেশি উৎসাহ দেখা গিয়েছিল রোহিতকে ওবিসি শ্রেণিভুক্ত বলে প্রমাণ করার কাজে। মানবসম্পদ বিকাশ মন্ত্রক রোহিতের মৃত্যুর পর একটি কমিটি গঠন করে যার মূল উদ্দেশ্য ছিল রোহিতের দলিত পরিচয়কে অপ্রমাণ করা। এই কাজটি করতে পারলে প্রমাণ করা সহজ হত যে রোহিত কোনো ব্যক্তিগত কারণে আত্মঘাতী হয়েছেন এবং তাঁর ফলে আপ্পারাও ও দত্তাত্রেয়দের মতো অভিযুক্তদের নিরপরাধ প্রতিপন্ন করা যায় সহজেই। কিন্তু ন্যাশনাল কমিশন ফর শিডিউল্ড কাস্ট-এর চেয়ারম্যান পি এল পুনিয়া এই কমিটির দাবিকে নস্যাৎ করেন এবং জানিয়ে দেন রোহিত এক জন দলিত শ্রেণিভুক্ত ছাত্রই ছিলেন এবং তাই তাঁর প্রতি নির্যাতনের যে অভিযোগ তিনি নিজের শেষ চিঠিতে তুলেছিলেন, তা নিয়ে তদন্ত হওয়াই বাঞ্ছনীয়। যদিও রোহিত ভেমুলার মা  রাধিকা ভেমুলা মাত্র কিছুদিন আগেই আরেক বার অভিযোগ করেছেন যে এই সরকার তাঁর মৃত ছেলে দলিত ছিল না তা প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। 

সরকারের সদিচ্ছার অভাব আরও এক বার প্রমাণ হয়ে গিয়েছে অতি সম্প্রতি, যখন রোহিত ভেমুলার শাহাদাৎ দিবসে রোহিতের মা রাধিকা-সহ আরও কিছু লোককে হায়দরাবাদ ইউনিভার্সিটির ভিতরে রোহিত-স্তূপে রোহিত-স্মরণ ও তাঁর মৃত্যুর প্রতিবাদে আয়োজিত অনুষ্ঠান থেকে আটক করা হয়। হস্টেল থেকে বিতাড়িত হওয়ার পর রোহিত একটি স্থানে তাঁবু খাটিয়ে থাকছিলেন, যাকে তিনি দলিতদের ঘেটোর সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। তাঁর মৃত্যুর এক বছর পূরণকালে ওই জায়গাটিতে তাঁর স্মরণে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। কিন্তু কর্তৃপক্ষ সে দিন কাউকে হায়দরাবাদ ইউনিভার্সিটির ভিতরে ঢোকার অনুমতি দেয়নি। এমনকি এক জন সাংবাদিক সুদীপ্ত মণ্ডল-সহ কিছু ছাত্রকে পুলিশ গ্রেফতার করে ওই অনুষ্ঠান থেকে এবং পরে মুক্তি দেয়। পরে অবশ্য ইউনিভার্সিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে আগে থেকে কোনো অনুষ্ঠানের অনুমতি চাওয়াই হয়নি, তাই কাউকে আটকানোর প্রশ্ন ওঠে না। কিন্তু এর আগের ঘটনাক্রম দেখলে কর্তৃপক্ষের দাবির প্রতি যে বিশেষ বিশ্বাস রাখা যায় না, তা বলাই বাহুল্য। তাই আবারও প্রশ্ন ওঠে কর্তৃপক্ষ এবং সরকারের সদিচ্ছার প্রতিই। (পরবর্তী সংখ্যায় সমাপ্য)  

ঋণস্বীকার:

http://indianexpress.com/article/opinion/columns/rohith-vemula-dalit-student-suicide-death-anniversary-hyderabad-4479148/

http://www.outlookindia.com/newswire/story/now-govt-desperate-to-declare-rohith-as-obc-says-radhika-vemula/964741

http://timesofindia.indiatimes.com/city/hyderabad/millennium-award-to-hcu-vice-chancellor-appa-rao-podile-by-pm-narendra-modi-triggers-protests/articleshow/56315418.cms

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here