বাজারে বৃষের দাপাদাপি, নিফটি ১০,৩৫০-র নীচে না নামা পর্যন্ত চিন্তার কিছু নেই

0
bull market

বিশেষ প্রতিনিধি: বিশ্ববাজারের সঙ্গে তাল মেলাতে ভারতীয় শেয়ার বাজারের চরম প্রবণতা প্রদর্শন নতুন নয়। সপ্তাহের প্রথম দিন সেই চেনা ছকের বাইরে ঘটেনি প্রায় কোনো কিছুই।  এক মাত্র এসবিআই বাদে প্রায় সমস্ত স্টকের সবুজ মাঠে বিচরণ সেনসেক্স-নিফটিকে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে থাকতে সহায়তা করেছে।  মঙ্গলবারেও ডাউ জোনস অথবা নিক্কেই নিয়ে কোনো সংশয় দেখা যায়নি।  এ দেশের শেয়ার বাজারও যে চড়াই-উৎরাইয়ের পথ ধরে কিছুটা হলেও উপরের দিকে উঠতে চলেছে, তা অনুমান করা যেতেই পারে।

গত সপ্তাহেই রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সুদের হার অপরিবর্তিত রাখার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে। তার আগে আমেরিকার ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাঙ্কও একই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।  তবে সে দেশের সর্বোচ্চ ব্যাঙ্কটি যে অদূর ভবিষ্যতে সুদের হার বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে বলে চাউর হয়ে গিয়েছে। কিন্তু ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক এ বিষয়ে কোনো স্থির সিদ্ধান্তে আসতে পারছে না শেয়ার সূচকের হুড়মুড়িয়ে উপরের দিকে উঠে যাওয়ার ঘটনাপ্রবাহ দেখে সংশয়ে ভুগছে।  তাদের তরফে বলা হচ্ছে, এই নজিরবিহীন ঊর্ধ্বগমনের রেখচিত্রে কতটা জল আর কতটা দুধ রয়েছে, তা ঠাওর করা যাচ্ছে না।

সোমবার ৯৪ পয়েন্ট উপরে উঠে বাজারে মুখ দেখিয়ে ছিল নিফটি, যদিও বন্ধ হওয়ার সময় তা থিতু হয়েছে ৮৪ পয়েন্টে। গত সপ্তাহের অস্বাভাবিক পতনের পর এই সামান্য ঊর্ধ্বগমন যে কোনো ফ্যাক্ট নয়, তা মানছেন প্রত্যেকেই। কিন্তু নিফটি যে আবার একবার ১০,৭০০-এর কাছে ঘুরতে যাবে, তা প্রায় নিশ্চিত। কিন্তু মাথায় রাখতে হবে ১০,৩৫০-র নীচে নেমে গেলে সাবধান হয়ে যেতে হবে। অর্থাৎ মালভূমির পথ ধরা শেয়ার বাজারের চড়াই আর উৎরাইয়ের খাঁজগুলোকে চিনে নিতে পারলে বিনিয়োগে কোনো বাধা থাকবে না।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবারের বাছাই স্টক হয়ে উঠতে পারে টাইটান। তৃতীয় ত্রৈমাসিকের রিপোর্ট বলছে, দুর্বলতা কাটিয়ে ওটার রসদ মজুত রয়েছে। ফলে এখন ৮০৯ টাকার এই স্টক শর্ট টার্মে নিয়ে ফেললে এপ্রিলের মধ্যে ৮৪৫ টাকায় ছেড়ে দেওয়া যেতে পারে।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here