অ্যানিমেশনে খাবার টেবিলে ‘সহবত’ শেখার পাঠ

0
162

পরিবারের কেউ টেবিলে বসে খাচ্ছে আপনি অফিস থেকে এসে ‘ঢাউস’ একটা ব্যাগ টেবিলে উপর রেখে পাশের চেয়ারে বসে তার সঙ্গে কথা বলতে শুরু করলেন। কেউ কারও মুখ দেখতে পাচ্ছে না। অথচ কথা চলছে। মুখ দেখে প্রতিক্রিয়া বোঝার জন্য মাঝে মাঝে গলা বাড়িয়ে দিচ্ছেন। ব্যাগের পাশ দিয়ে উঁকি-ঝঁকি মারছেন। উল্টো দিকের মানুষটি প্রচণ্ড বিরক্ত বোধ করছেন। আর যদি অপরিচিত হন তবে অসম্মানিত বোধ করবেন আপনার এই আচারণের জন্য।
অথচ যদি উল্টোটা করতেন? তবে পরিস্থিতিটিও একেবারে অন্যরকম হতো। আপনার উল্টো দিকে বসে থাকা মানুষটিও অসম্মানিত বোধ করতেন না আবার আপনাদের মধ্যে কথাও চলত বাধাহীন ভাবে। একেই বলে সহবত— অর্থাৎ কোন সময় কোন ধরনের আচারণ করলে অন্যান্যরা অসম্মানিত বা অসুবিধা বোধ করবেন না।

সাধারণ ভাবে ছোটবেলা থেকে এর বেশ কয়েকটির পাঠ দিয়ে দেন বাবা-মা, স্কুল। আর কয়েকটি পাঠ মেলে সামাজিক আদান-প্রদানের মাধ্যমে।

খাবার টেবিলে কী ধরনের আচারণ করা উচিত তা ছোটেদের শেখাতে একটি অ্যানিমেশন সিডি তৈরি করেছেন ফিটনেস এবং ভালো থাকা বিশেষজ্ঞ নমিতা জৈন। ১৭ মিনিটের এই সিডিতে একটি গল্পের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে খাবার টেবিলে কী ধরনের আচারণ করা উচিত। মঙ্গলবার শহরের বেশ কয়েকটি নামি স্কুলের অধ্যক্ষ, সহ-অধ্যক্ষ ও শিক্ষিকার হাতে এই সিডি তুলে দিলেন তিনি। নামী কুকওয়্যার কোম্পানি কিশকো এই সিডিটি বার করেছে। নমিতা সংস্থাটির ম্যানেজিং ডিরেক্টর। এই উপলক্ষে কিশকোর একটি প্রোডাক্টও লঞ্চ করেন তিনি।

নমিতা জৈন জীবনযাপন এবং ফিটনেস নিয়ে ইতিমধ্যেই ১০টি বই লিখেছেন। জানালেন,‘ছোটদের জন্য কাজ করার ইচ্ছে আমার অনেক দিনের। আচার-আচরণ কেউ ছোট থেকে পায় তবে বড় হয়ে কোনও অসুবিধায় পড়তে হয় না।’ দেশের বিভিন্ন শহরের একাধিক স্কুলে এই সিডিটি তিনি দিয়েছেন। আগামী দিনে আরও বেশ কয়েকটি শহরে গিয়ে এই সিডিটি স্কুলগুলির হাতে তুলে দেবেন বলে জানিয়েছে নমিতা।   

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here