প্রয়াত সুপ্রিয়া দেবী, রাতে কেওড়াতলায় শেষকৃত্য সম্পন্ন

0
1845
supriya-devi meghe dhaka tara

কলকাতা: মহানায়ক তো বিদায় নিয়েছেন কবেই। কয়েক বছর আগে অন্তরাল থেকেই মৃত্যু হয়েছে মহানায়িকার। এ বার প্রয়াত হলেন বাংলা চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগের আরেক স্তম্ভ সুপ্রিয়া দেবী। শুক্রবার ভোর রাতে তাঁর বালিগঞ্জের বাড়িতে ৮৫ বছর বয়সে মৃত্যু হল তাঁর। রাতে কেওড়াতলা মহাশ্মশানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

সুপ্রিয়া দেবী দীর্ঘদিন অসুস্থ ছিলেন। হাসপাতালে ভর্তিও ছিলেন। দিন সাতেক আগেই হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যাতেও ভুগছিলেন।

আরও পড়ুন: সুচিত্রাকে খারাপ লাগা, স্বামী উত্তমের তাঁর সঙ্গে অন্য পুরুষকে মিশতে না দেওয়া এবং মৃত্যুর অপেক্ষা: সুপ্রিয়ার জবানবন্দি

১৯৩৩ সালের ৮ জানুয়ারি সাবেক বার্মায় জন্ম হয় সুপ্রিয়ার। আদতে বাংলাদেশের ফরিদপুরের বাসিন্দা সুপ্রিয়ার পরিবার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কলকাতায় চলে আসেন। ১৯৫৪ সালে বিশ্বনাথ চৌধুরীর সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। কন্যা সন্তান সোমার জন্ম হয়।

ইতিমধ্যে ১৯৫২ সালে উত্তমকুমার অভিনীত ‘বসু পরিবার’ ছবির মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন সুপ্রিয়া চৌধুরী। এ সময় তিনি আরও কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন। পরবর্তী কালে বিয়ে, সন্তান ইত্যাদি কারণে কিছুদিন চলচ্চিত্র জগতের বাইরে থাকলেও পঞ্চাশের দশকের শেষের দিকে নতুন করে ফিরে আসেন।

তাঁর বিখ্যাত ছবিগুলি সম্পর্ক নতুন কিছু বলার নেই। তবু মনে করা যাক, মেঘে ঢাকা তারা, কোমল গান্ধার, শুন বরনারী, স্বরলিপি, তিন অধ্যায়, সন্ন্যাসী রাজা, সিস্টার ছবিগুলির কথা। সিনেমা ছাড়াও তিনি সিরিয়ালেও চুটিয়ে অভিনয় করেছেন পরবর্তী কালে।

পারিবারিক জীবনে সেই সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে অত্যন্ত সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সুপ্রিয়া। পরিবার ছেড়ে একসঙ্গে থাকতে শুরু করেছিলেন মহানায়ক উত্তমকুমারের সঙ্গে। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত মহানায়কের একান্ত সঙ্গীর পরিচয়টিকেই বহন করেছেন সুপ্রিয়া দেবী।

তাঁর মৃত্যুতে সব মহলেই শোকের ছায়া। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা এবং সংস্কৃতি জগতের মানুষজন সুপ্রিয়া দেবীর প্রয়াণে শোক প্রকাশ করেন।

সুপ্রিয়া দেবীর উদ্দেশে যাতে সবাই তাঁদের শ্রদ্ধা জানাতে পারেন তার জন্য বিকেল সাড়ে তিনটে থেকে তাঁর মরদেহ রবীন্দ্র সদনে রাখা থাকে। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় তাঁর মরদেহ নিয়ে শোকযাত্রা শুরু হয়। শোকযাত্রায় ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যপাধ্যায়-সহ রাজ্য মন্ত্রিসভার বহু সদস্য, কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়, চিত্রতারকা প্রসেনজিৎ-সহ টলিউডের তারকা ও কলাকুশলীরা। কেওড়াতলা মহাশ্মশানে একটি সাদা বেদিতে তাঁর মরদেহ রাখা হয়। গান স্যালুট ও বিউগলে করুণ সুরের মূর্ছনায় সুপ্রিয়া দেবীকে শেষ বিদায় জানানো হয়।

Supriya Devi from khaboronline on Vimeo.

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here