ওয়েবডেস্ক: কিছু দিন আগেও তাঁদের সম্পর্কটা ‘নারদ, নারদ’-এর জায়গাতেই আটকে ছিল না?

ছিল তো ছিল! আড়ি থেকে কি আর ভাবের ঘরে এসে পৌঁছয় না লোকজন?

ফলে, শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায় আর মিমি চক্রবর্তীকে যদি একসঙ্গে সময় কাটাতে দেখাই যায়, তাতে অবাক হওয়ার কী আছে!

তা ছাড়া, সত্যি বলতে কী, পেশাদার দুনিয়ায়, বিশেষ করে বিনোদন জগতে মনোমালিন্য কখনই চিরস্থায়ী হয় না। হামেশাই দেখবেন আজ এ ওঁকে দুষছেন, তো কাল তাঁর সঙ্গেই হাসিমুখে ছবি পোস্ট করছেন নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে। তা ছাড়া, ‘টোটাল দাদাগিরি’ মুক্তি পাওয়ার পর শুভশ্রী নিজেই তো উদ্যোগ নিয়ে মিমির সঙ্গে ঝামেলাটা মিটিয়ে ফেলার প্রথম ধাপটায় পা রেখেছিলেন। টুইট করে ছবি মুক্তির জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন মিমিকে। ফলে, মিমিও আর দু’জনের মাঝেই যে রয়েছেন রাজ চক্রবর্তী, সে ব্যাপারটাকে বিশেষ পাত্তা দেননি। বরং ডাকনামে ডেকে ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন শুভশ্রীকে।

আরও পড়ুন: রাজের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসার আগে শুভশ্রীর শুভেচ্ছা মিমিকে

আর টলিপাড়ার গুজব বলেছিল- এ আর কিছুই নয়, রাজের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসার আগে মিমিকে সৌহার্দ্য দেখিয়ে এক হাত নিলেন শুভশ্রী। কথা আছে, আসন্ন ফেব্রুয়ারি মাসেই না কি বিয়ে সেরে ফেলছেন শুভশ্রী আর রাজ। তা, এ বার যে এই দুই নায়িকা একসঙ্গে সময় কাটাতে বেরোলেন, এটার কি ব্যাখ্যা দিচ্ছে টলিপাড়া?

টলিপাড়ার ফোড়ন কাটার আগে একবার ছবিটার দিকে তাকান তো দেখি! শুভশ্রী আর মিমিকে তো দেখতেই পাচ্ছেন বেশ হাসিখুশি মেজাজে, সঙ্গে শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়কেও চোখে পড়ছে না?

পড়বেই তো! কেন না, টলিপাড়ার খবর বলছে শ্রাবন্তীর উদ্যোগেই না কি ফের পরস্পরের মুখ দেখেছেন শুভশ্রী আর মিমি, সে সোশ্যাল মিডিয়ায় যতই তাঁরা শুভেচ্ছা আর ধন্যবাদের বন্যা বইয়ে দিন না কেন! এবং না জানালেই নয়, ছবিটা পোস্ট করেছেন নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে শ্রাবন্তীই!

কিন্তু এই গল্পে ছোটো একটা টুইস্টও আছে! টলিপাড়া বলছে, যে ছবিটা দেখছেন, তা তিন কন্যার নিছক সময় কাটানো নয়। এটা আদতে শুভশ্রীর স্পিনস্টার পার্টি! মানে আইবুড়ো নাম খন্ডানোর আগে বন্ধুদের সঙ্গে স্বাধীনতা উপভোগ করে নেওয়া!

সব মিলিয়ে ঘটনা বিয়ের দিকেই যাচ্ছে, কী বলুন?

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here