নিজস্ব প্রতিনিধি: সকাল থেকেই উত্তেজনা ছিল চোখে পড়ার মতো। ভোরের আলো চোখে মেখে আর ঠান্ডা হাওয়া কলজেয় ভরে চলছিল প্রস্তুতি। বিশিষ্ট সমাজসেবী শঙ্কর রাউতের আহ্বানে বরানগর ম্যারাথনে শামিল হয়েছিলেন এলাকাবাসী-সহ দূরদূরান্তের প্রতিযোগীরা।

baranagar marathon

তবে শুধুই ২১ কিলোমিটার দৌড়ের প্রতিযোগীরাই নয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফুটবল-সহ ক্রীড়াজগতের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বরা। গৌতম সরকার থেকে শুরু করে অ্যাথলেটিক কুন্তল রায় হয়ে আলমবাজার মঠের মধু মহারাজও। মধু মহারাজ-ই বেলুন উড়িয়ে এই প্রতিযোগিতা শুরু করার নির্দেশ দেন প্রতিযোগীদের।

baranagar marathon

দৌড় এই প্রতিযোগিতার কেন্দ্রে থাকলেও বরানগর ম্যারাথন-এর আসল লক্ষ্য কিন্তু জনসচেতনতা বিস্তার। পথ নিরাপত্তা এবং তার আইন জনগণের মনে গেঁথে দেওয়ার লক্ষ্যেই এই ম্যারাথনের ডাক দিয়েছিলেন শঙ্কর রাউত। “সেভ ড্রাইভ, সেভ লাইফকে সামনে রেখেই এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি আমরা। জনগণকে পথ নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতন করতে এটাই আমাদের তরফে প্রয়াস”, জানিয়েছেন তিনি।

baranagar marathon

অন্য দিকে, ‘খবর অনলাইন’-কে বিশেষ আলাপচারিতায় জানিয়েছেন গৌতম সরকার- এই ধরনের উদ্যোগ কী ভাবে সমাজে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যের সেতুটি রচনা করে দেয়। “এই প্রয়াস সত্যিই প্রশংসনীয়। সমাজে যত বেশি করে এ ধরনের প্রয়াস প্রসারিত হবে, তত-ই সবাই পরস্পরের কাছে আসবেন। তৈরি হবে ঐক্যবোধ”, জানিয়েছেন এই বর্ষীয়ান ফুটবলার।

baranagar marathon

তিনি যে ভুল কিছু বলেননি, পথের দু’পাশে ভিড় করে থাকা উৎসাহী জনমণ্ডলীই তার প্রমাণ। পুলিশের ব্যান্ডের সুরে, ক্লান্ত প্রতিযোগীদের জল ও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার প্রয়াসে তা প্রমাণ করে দিল বরানগর ম্যারাথন। সঙ্গে জানিয়ে গেল, একতার সম্মিলিত শক্তিকে উপেক্ষা করা যায় না।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here