বাড়তে পারে তাজমহলের প্রবেশমূল্য, ক্ষোভ পর্যটন মহলে

0
taj mahal ticket

ওয়েবডেস্ক: তাজমহলের প্রবেশমূল্য বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (এএসআই)। এতেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছে পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন অংশীদার।

পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন সংগঠনের বক্তব্য, দেশের ঐতিহাসিক সৌধগুলির ব্যবসায়ীকরণ না করে এএসআইয়ের উচিত কী ভাবে জনতার ভিড় সামাল দেওয়া যায়, সেই দিকে নজর দেওয়া। উল্লেখ্য, গত দু’বছরে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার প্রবেশমূল্য বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে এএসআই।

এএসআইয়ের প্রস্তাব অনুযায়ী দেশের নাগরিক, সার্কের (বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং মলদ্বিপ) নাগরিক, বিমস্টেকের (বাংলাদেশ, ভুটান, নেপাল, মায়ানমার, শ্রীলঙ্কা এবং থাইল্যান্ড) নাগরিক এবং বাকি বিদেশি নাগরিকদের জন্য প্রবেশমূল্য বাড়বে।

বিজ্ঞাপন

বর্তমানে ভারতীয় এবং সার্ক ও বিমস্টেক নাগরিকদের জন্য ৪০ এবং বিদেশিদের জন্য এক হাজার টাকা প্রবেশমূল্য ধার্য করা রয়েছে। প্রথমটির ক্ষেত্রে এএসআইয়ের ঘরে যায় তিরিশ টাকা এবং বাকি দশ টাকা নেয় আগ্রা উন্নয়ন পর্ষদ (এডিএ), দ্বিতীয়টির ক্ষেত্রে ৫০০ টাকা নেয় এএসআই বাকিটা এডিএ।

নতুন প্রস্তাবে টিকিটমূল্য বেড়ে ভারতীয় এবং সার্ক ও বিমস্টেক নাগরিকদের জন্য হতে পারে পঞ্চাশ টাকা এবং বিদেশিদের জন্য ১১০০ টাকা। নতুন প্রবেশমূল্যের ভিত্তিতে ভারতীয়দের থেকে এএসআই নেবে ৪০ এবং বিদেশিদের ক্ষেত্রে ৬০০ টাকা নেবে এএসআই।

গত ২১ ডিসেম্বর এই ব্যাপারে নির্দেশিকা জারি করে এএসআই, তবে দিন দুয়েক হল ব্যাপারটা জানাজানি হয়েছে। আগরার এএসআই অফিসের সুপারিন্টেনডেন্ট ভুবন বিক্রম সিংহ বলেন, “দু’দিন আগে এই নির্দেশিকা হাতে পেয়েছি। সব অংশীদারের কাছে এই নির্দেশিকা পাঠানো হচ্ছে। ৪৫ দিনের মধ্যে এই সংক্রান্ত আপত্তি তুলতে পারে বিভিন্ন মহল।”

এই ব্যাপারে আপত্তি তোলার পথেই হাঁটছে পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন মহল। তাদের দাবি, আগে থেকে প্রবেশমূল্য বাড়ানোর তথ্য এএসআইয়ের হাতে থাকলেও, গত ২ এবং ৩ জানুয়ারির মিটিং-এ তাদের সঙ্গে এই ব্যাপারে কোনো আলোচনাই করেনি এএসআই।

আগরার পর্যটন গিল্ডের সম্পাদক রাজীব সাক্সেনা বলেন, “ভিড় সামলানোর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। পরিকাঠামো উন্নয়নেও কোনো ব্যবস্থা নেই, তবুও এখনই বিদেশিদের এক হাজার টাকার প্রবেশমূল্য দিতে হয়। দু’বছরে দ্বিতীয় বার ভাড়া বাড়ানো আমরা সমর্থন করছি না। আগে পরিকাঠামো উন্নয়ন করুক কর্তৃপক্ষ।”

সাক্সেনার বক্তব্য, ভারতে বিদেশিদের আগমন ক্রমশ কমছে। বিদেশিদের আমন্ত্রণের জন্য কোনো উপযুক্ত ব্যবস্থা না নিয়ে এই মূল্য বাড়ানোর প্রস্তাব কোনো ভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। আগরার হোটল ও রেস্টুরেন্ট সংগঠনের সভাপতি রাকেশ চৌহান বলেন, “আমরা প্রবেশমূল্য বাড়ানোর প্রস্তাবে আপত্তি তুলব।”

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here