দাপট দেখাচ্ছে কুয়াশা, তবে আপাতত জারি থাকবে ঠান্ডা

0
1025
kolkata winter

কলকাতা: এ বারের শীতটা অন্য বারের থেকে একদমই আলাদা। প্রায় দশ দিন হয়ে গেল, স্বাভাবিকের থেকে বেশ নীচেই রয়েছে রাজ্যের সব জায়গার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। শেষ বার শীতের এ রকম রূপ পশ্চিমবঙ্গ কবে দেখেছিল, সেটা কার্যত মনেই করা যাচ্ছে না। শীতের দাপট এতটাই বেশি যে কুয়াশা হলেও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বেশি বাড়তে পারছে না। ঠিক যেমনটা হল সোমবার।

সোমবার কলকাতা, অর্থাৎ আলিপুরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অথচ সোমবার সকালে গাঢ় কুয়াশার চাদরে ঢেকে যায় কলকাতা। কলকাতার উপকণ্ঠে দমদমে তাপমাত্রা ছিল ১০ ডিগ্রি। কুয়াশার মধ্যে শৈত্যপ্রবাহ দাপট দেখিয়েছে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায়। সোমবার দক্ষিণবঙ্গের শীতলতম জায়গা ছিল পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি। সেখানে এ দিন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৬.২ ডিগ্রি। পানাগাড় এবং শ্রীনিকেতনে তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৭ এবং ৭.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বর্ধমান, বাঁকুড়া, বর্ধমান এবং কৃষ্ণনগরে তাপমাত্রা ছিল ৯ ডিগ্রির আশেপাশে।

উত্তরবঙ্গেও শীতের দাপট অব্যাহত। কোচবিহারে এ দিন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৬.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শিলিগুড়ি এবং জলপাইগুড়িতে তাপমাত্রা ৭ থেকে ৮ ডিগ্রির মধ্যে ঘোরাফেরা করেছে। সেখানেও কিন্তু যথেষ্ট প্রভাব ছিল কুয়াশার।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু কুয়াশা থাকলে তো সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়াই ছিল দস্তুর। এ বার অন্য রকম হল কেন? এর কারণ ব্যখ্যা করেছেন বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা। বাংলাদেশে তৈরি হওয়া একটি ঘূর্ণাবর্তকে এই কুয়াশার জন্য দায়ী করেছেন রবীন্দ্রবাবু। তাঁর কথায়, “এই ঘূর্ণাবর্তের ফলে বাতাসে কিছু জলীয় বাষ্প রয়েছে। কিন্তু ঠান্ডা হাওয়া এবং কম তাপমাত্রা এই জলীয় বাষ্পকে বায়ুমণ্ডলের নীচের স্তরের রেখে দিয়েছে। এর জন্য কুয়াশা তৈরি হচ্ছে।” আগামী অন্তত তিন দিন এই কুয়াশার দাপট চলবে বলে জানান তিনি।

রবীন্দ্রবাবু আরও জানান যে উত্তর ভারত এবং পাকিস্তান থেকে শীতল হাওয়ার বয়ে আসা এখনও অব্যাহত। তাই এখনই শীত কমার কোনো সম্ভাবনা নেই। যদিও কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কিছুটা বেড়ে ১৩ ডিগ্রির কাছাকাছি যেতে পারে, সেটাও থাকবে স্বাভাবিকের কমই। রাজ্যের বাকি জেলাতেও শৈত্যপ্রবাহ জারি থাকবে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করবে ৭ থেকে ৯ ডিগ্রির মধ্যে।

শীতের এই প্রকোপ কবে কমবে?

রবীন্দ্রবাবুর কথায়, এই সপ্তাহের শেষের দিকে কিছুটা বাড়তে পারে তাপমাত্রা। একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা এবং একটি ঘূর্ণাবর্তের ফলে জলীয়বাষ্প ঢুকতে পারে রাজ্যের বায়ুমণ্ডলে। যার ফলে কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কিছুটা বেড়ে ১৫ ডিগ্রিতে যেতে পারে বলে জানান রবীন্দ্রবাবু।

 

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here