গুড়ের কী কী গুণ আছে জানেন? জানুন ১৪টি গুণের খবর

0
3948

ওয়েবডেস্ক : শীতের আমেজ আর গুড়ের গন্ধ একে অপরের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে। শীত কাল এলেই গুড়ের নানান খাবার চারপাশে। নলেন গুড়, পাটালি গুড়, ঝোলা গুড় কী নেই সেই তালিকায়। সঙ্গে নতুন গুড়ের পায়েস, সন্দেশ, পেরা, কেক আরও কত কি। কিন্তু স্বাস্থ্য সচেতন মানুষরা হাত বাড়িয়েও আবার গুটিয়ে নেন। এত খানি মিষ্টি খেয়ে ফেলবেন! তার সঙ্গে তো ওজনটাও বাড়ছে। আবার লোভটাও সামলাতে পারছেন না। কেমন একটা দোটানায় ভোগেন।

চিনি নয় মনে রাখবেন এটা গুড়। এর কিন্তু অনেক মাহাত্ম্য। জেনে নিন তবে শরীরের ঠিক কী কী উপকার করে নানা ধরনের লোভনীয় গুড়।

কোষ্ঠকাঠিন্য – কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে খুবই ভালো গুড়। এর মধ্যে পাচক রস রয়েছে প্রচুর পরিমাণে। এই পাচক রস সমস্যা সমাধানে দারুণ সহায়ক হয়। এর মধ্যের ম্যাগনেশিয়াম শরীরকে সুস্থ রাখে। ১০ গ্রাম গুড়ে ১৬ মিলিগ্রাম ম্যাগনেশিয়াম থাকে। যা প্রতিদিনের প্রয়োজনের চার শতাংশই যোগান দেয়।

লিভারের জন্য – লিভার পরিষ্কার ও সুস্থ রাখতে সাহায্য করে গুড়। ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে গুড়। ফলে লিভার সুস্থ থাকে।

সর্দি কাশি জ্বর – জ্বরের মতো নানান সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে গুড়। সর্দি কাশি দূর করতে দারুণ সাহায্য করে। গরম জলে সামান্য গুড় মিশিয়ে খেলে খুবই উপকার হয়। বা চায়ের সঙ্গে চিনির বদলে গুড় মিশিয়ে খাওয়া যায়।

রক্ত – রক্ত পরিষ্কার রাখতে গুড় খুব ভালো। নিয়মিত নির্দিষ্ট পরিমাণ গুড় খেলে শরীর সুস্থ থাকে।

হিমোগ্লোবিন – রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে গুড়। তাই প্রতিদিনই সামান্য গুড় খাওয়া যেতে পারে। রক্তের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে গুড়। এর মধ্যে জিঙ্ক জাতীয় নানান উপাদান আছে এই উপাদানগুলোই প্রতিরোধ শক্তি গড়ে তোলে।

শরীরের বিভিন্ন ক্রিয়ায় – অপ্রয়োজনীয় উপাদানগুলো শরীর থেকে বের করে শরীর সুস্থ ও সতেজ রাখে গুড়। ফুসফুস, শ্বাসনালী,পাকস্থলি, বৃক্ক, খাদ্যনালী থেকে শুরু করে দেহের গোটা ব্যাপারটাই সুস্থ রাখতে গুড় খুবই উপকারী।

ঋতুর সমস্যা – ঋতুকালীন সমস্যা সমাধানেও  গুড় উপকার করে। বিশেষ করে হাতে পায়ে টান ধরা থেকে মুক্তি দিতে পারে গুড়ের নিয়মিত সেবন।

আরও পড়ুন : দোকানের গুড়টা খাঁটি তো? কেনার আগেই জেনে নিন গুড় চেনার পাঁচটি উপায়!

অ্যানিমিয়া – অ্যানিমিয়া কমাতে গুড় ভালো। রক্তকণিকার সংখ্যা বাড়াতে ও ঠিক রাখতে গুড় উপকারী। বিশেষত গর্ভবতী মহিলাদের জন্য এর জুড়ি মেলা ভার।

পেট ঠান্ডা – পেট ঠান্ডা রাখে গুড়। গুড় খেলে শরীর স্বাভাবিক ভাবেই ঠান্ডা থাকে। এটি পাকস্থলিকে ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে। গুড়ের সঙ্গে বরফ মিশিয়ে খেলা খুবই ভালো।

রক্তচাপ – রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে গুড়। গুড়ের মধ্যে সোডিয়াম আর পটাশিয়াম থাকে। এই সব উপাদান শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ফলে রক্তের চাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে।

শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা – শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা দূর করতে গুড় খওয়া যেতে পারে। নিয়মিত গুড় খেলে টানের সমস্যা, ব্রঙ্কাইটিস ইত্যাদি দূর হয়।

জয়েন্ট পেন – জয়েন্ট পেন থেকে মুক্তি পেতেও গুড়ের সাহায্য নেওয়া যেতে পারে। সুখদা হাসপাতালের ডাঃ মনোজ কে আহুজা বলেন, এই সমস্যায় যাঁরা ভুগছেন তাঁরা নিয়মিত গুড় খেতে পারেন। এমন কি এক গ্লাস দুধের সঙ্গে গুড় মিশিয়ে রোজ খেলে হাড় শক্ত হয়। এতে আর্থারাইসের সমস্যা দূর হয়।

ওজন নিয়ন্ত্রণ – এ ক্ষেত্রেও দারুণ উপকারী গুড়। এতে পটাশিয়াম আছে, যা ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। মেটাবলিজম বাড়াতে আর পেশির গঠনে সাহায্য করে। দিল্লির নিউট্রিশনিস্ট আনসুল জাইভারত বলেন, এই খনিজ শরীরে জলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রিত হয়। তাই রোজের খাবারে গুড় রাখা যেতেই পারে।

এনার্জি – এনার্জি বাড়াতে সাহায্য করে গুড়। এর মধ্যের নানান খনিজ উপাদানগুলো শরীর সতেজ ও সুস্থ করে। রক্ত পরিষ্কার রাখে। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই শরীর তরতাজা থাকে ও এনার্জি বেশি থাকে।

উল্লেখ্য গুড়ে কিন্তু ক্যালোরির পরিমাণ বেশি থাকে। এক গ্রাম গুড়ে থাকে চার কিলো ক্যালোরি।

তাই এ বার থেকে মন খুলে গুড় আর গুড়ের তৈরি জিনিস খান আর সুস্থ থাকুন।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here