নিয়ন্ত্রণে রাখুন শ্বাসকষ্ট

0
115

ডাঃ অরুণাংশু ভট্টাচার্য (বক্ষ ব্যাধি বিশেষজ্ঞ)

সামান্য বৃষ্টিতে ভিজলে বা গাড়ির কাঁচ খোলা রাখলেই শ্বাসকষ্ট শুরু। বেগুন, পাকা কলা বা হাঁসের ডিম খেলে দমবন্ধ হয়ে আসে। ভয়ের কোনো কারণ নেই। কতগুলি বিষয় শুধু নজরে রাখতে হবে।

হাঁপানিতে শ্বাসনালিতে  পরিবর্তন: 

১। শ্বাসনালি লাল ও ফুলে যাওয়ার ফলে সরু হয়। 
২। শ্বাসনালির চারপাশের মাংসপেশিসমূহ সংকুচিত হয়ে শ্বাসনালিকে আরও সরু করে দেয়। 
৩। শ্বাসনালিতে অধিক পরিমাণ শ্লেষ্মা তৈরি হয়ে শ্বাসনালিতে বায়ুপ্রবাহ আংশিকভাবে বন্ধ করে দেয়। 

চিকিৎসা 
হাঁপানি একটি দীর্ঘমেয়াদি রোগ। হাঁপানি সারানো সম্ভব না হলেও সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। যেসব উত্তেজকের (ট্রিগার) কারণে হাঁপানির তীব্রতা বেড়ে যায়, রোগীকে সেগুলো শনাক্ত করতে হবে এবং এড়িয়ে যেতে হবে। 

কয়েকটি বিষয় মনে রাখবেন

১। ধূমপান করবেন না 
২। ঠান্ডা হাওয়া হাঁপানির তীব্রতা বাড়িয়ে দেয়। এ সময় ওষুধের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে হবে। 
৩। বাড়ির পরিবেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে এবং বাড়িতে অবাধ বিশুদ্ধ বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা রাখতে হবে। 

হাঁপানির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া 
১। অনেক রোগীই হাঁপানি চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা বলে, কিন্তু অনিয়ন্ত্রিত হাঁপানি আরও ভয়াবহ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে। 
২। ঠিক চিকিৎসা ও ওষুধ ব্যবহারের মাধ্যমে হাঁপানি নিয়ন্ত্রণ না করলে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ফুসফুসের কর্মক্ষমতা হ্রাস পাবে এবং অকেজো হবে। 
৩। শিশুদের হাঁপানির ঠিকমতো চিকিৎসা না করালে বৃদ্ধি ব্যাহত হয় এবং মায়েদের বেলায় গর্ভস্থ ভ্রূণের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here