সাইনাসের যন্ত্রণায় জীবন অতিষ্ঠ? এই ঘরোয়া পদ্ধতিগুলো মেনে চলুন

0
1218

ওয়েবডেস্ক: বর্ষবরণের রাত যখন বেহিসেবি উদযাপনে ব্যস্ত, আপনি ঘরের আলো নিভিয়ে শুয়ে আছেন বিছানায়। আশে পাশের বাজির আওয়াজ দুর্বিষহ হয়ে উঠছে ক্রমশ। কাছের মানুষদের গলা পর্যন্ত অসহ্য লাগছে। কি? এই ভাবেই শুরু হল আপনার নতুন বছর? সাইনাসের ব্যথা কেড়ে নিচ্ছে একঘেয়ে বেঁচে থাকার মাঝে হঠাৎ পাওয়া ছোট ছোট  সুন্দর মুহূর্তগুলো। অথচ ঘরোয়া কিছু টোটকা মেনে চললেই কিন্তু অনেকটা স্বস্তি পেতে পারেন সাইনাসের যন্ত্রণা থেকে। একবার চেষ্টা করেই দেখুন:

স্টিম বাথ নিন

আজকাল চিকিৎসকেরা সাইনাসের ব্যথা থেকে বাঁচতে প্রায়ই স্টিম বাথের পরামর্শ দেন। আমাদের শরীরের বিশেষ কিছু টিসু ফুলে গেলে সাইনাসের ব্যথা শুরু হয়। ওই সব টিসুর মধ্যে আসলে বাতাস ঢুকে বায়ু গহ্বর তৈরি করে। স্টিম বাথ নিলে ওই টিসুগুলো আর্দ্র হয়ে পড়ে। ফলে ব্যথা কমে। গরম জমে এক/দু ফোঁটা ইউক্যালিপটাস অথবা মেন্থল ফেলে দিলে সেই বাষ্প নাকে জমে থাকা মিউকাসকে আলগা হতে সাহায্য করে। স্বভাবতই আরাম পাওয়া যায়।

বিজ্ঞাপন

আর্দ্র থাকুন

দিনে অন্তত ২ লিটার জল পান করুন। শরীরকে আর্দ্র রাখলে সাইনাসের টিসুতে বায়ু গহ্বর তৈরি হবে না। কাফেইন আর অ্যালকোহলজাত পানীয় এড়িয়ে চলুন। এগুলি শরীরকে ডিহাইড্রেটেড করে দেয়।

মশলাদার খাওয়ার খান

হ্যাঁ, ঠিকই দেখছেন। তবে মশলাদার খাওয়ার মানেই কিন্তু অস্বাস্থ্যকর খাওয়ার নয়। রান্নায় সরষের তেল, গরম মশলা ব্যবহার করলে শরীরে জমে থাকা মিউকাস বেরিয়ে যায়। লাল লঙ্কার গুঁড়ো এম্নিতেই জীবাণুনাশক এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

মধু-লেবুর জল পান করুন

সামান্য গরম জলে আধখানা লেবু এবং মধু মিশিয়ে পান করুন। এটিও জমে থাকা মিউকাস বের করতে সাহায্য করবে।

অ্যাপেল সিডার ভিনিগার

গরম জল অথবা চায়ে দু/তিন চামচ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে পান করুন। দিনে অন্তত তিন বার। এটি শরীরকে ডিটক্সিফাই করতে সাহায্য করে। নাকে আটকে থাকা মিউকাস বের করে আনতেও খুব কার্যকর।

সুপ পান করুন

চিকেন সুপ থেকে শুরু করে ভেজিটেবল সুপ, যে কোনো ধরণের সুপ-ই বুকে জমে থাকা কনজেশন আলগা করতে কাজে দেয় খুব।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here