শামির দাপটে ওয়ান্ডারার্সের আতঙ্কের পিচে ভারতের ঐতিহাসিক জয়

0
582
mohammad shami appeals

ভারত: ১৮৭ এবং ২৪৭ (রাহানে ৪৮, কোহলি ৪১, মর্কেল ৩-৪৭)

দক্ষিণ আফ্রিকা: ১৯৪ এবং ১৭৭  (এলগার ৮৬ অপরাজিত, আমলা ৫২, শামি ৫-২৮)

জোহানেসবার্গ: যতই আতঙ্কের পিচ হোক, ভারতকে জয়ে ফেরাল পয়মন্ত ওয়ান্ডারার্সই। ২০০৬ সালে এই ওয়ান্ডারার্সেই দক্ষিণ আফ্রিকার মাঠে ভারত তাদের প্রথম টেস্ট ম্যাচ জয়ের স্বাদ পায়। ঠিক তার এক বছর পরে এখানেই ধোনির হাতে উঠেছিল টি২০ বিশ্বকাপের ট্রফি। এ বার সেই মাঠেই টেস্ট সিরিজের শেষ ম্যাচ জিতে কিছুটা সম্মান রক্ষা করল ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকা হারল ৬৩ রানে। বল হাতে ভেলকি দেখালেন মহম্মদ শামি (৫-২৮)।

বিজ্ঞাপন

আগের দিন রাতে ও সকালে বৃষ্টি হওয়ার ফলে আউটফিল্ডে কিছু জায়গা স্যাঁতসেঁতে হয়েছিল। কভার থাকা সত্ত্বেও পিচেও কিছু  স্যাঁতসেঁতে ভাব ছিল। সংশয় ছিল খেলা শুরু করা যাবে তো! শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা দেরিতে খেলা শুরু হয়।

গতকালের ১ উইকেটে ১৭ রান হাতে নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা শনিবার খেলতে নামে। মধ্যাহ্নভোজ পর্যন্ত কোনো উইকেট না পড়ায় মনে হচ্ছিল, ওয়ান্ডার্সের এই পিচ হঠাৎ ভালো হয়ে গেল বোধহয়। কিন্তু না। মধ্যাহ্নভোজের পর ফের খেল দেখাতে শুরু করল পিচ। এবং তার বলি হল দক্ষিণ আফ্রিকা।

দ্বিতীয় উইকেটের জুটিতে ১১৯ রান যোগ হওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা প্যাভেলিয়নের পথে লাইন লাগিয়ে দেন বলা যায়। একমাত্র অবিচল থাকেন ওপেনার এলগার। তাঁকে যোগ্য সঙ্গ দিয়েছিলেন হাশিম আমলা। নিজের ৫২ রানের মাথায় ইশান্ত শর্মার বলে হার্দিক পাণ্ড্যর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যেতেই পতন শুরু হয়ে যায় ফাফ দু প্লেসিদের। একমাত্র ফিলান্দার (১০ রান) ছাড়া কারও রান দু’ অঙ্কে পৌছোয়নি। বল হাতে বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন শামি, পাশে থাকেন বুমরাহ আর ইশান্ত।

ব্যাটে-বলে অনবদ্য অবদানের জন্য ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হন ভুবনেশ্বর কুমার।

একদিনের সিরিজ শুরু হবে বৃহস্পতিবার থেকে।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here