প্রেমকে রিচার্জ করতে আপনি কি এগুলো কখনও করেছেন? নতুন বছরে করে দেখুন

0

ওয়েবডেস্ক:  প্রায়ই খিটমিট লেগে থাকছে। ভালো খুবই বাসেন কিন্তু কোথাও যেন সেই গদগদ ভাবটা হারিয়ে গিয়েছে! এমনটাই কি অনুভব করেন একা থাকলে? তা হলে নতুন বছরে আবার রিচার্জ করে নিন আপনার প্রেম। ভাবছেন প্রেম আবার কী ভাবে রিচার্জ হয়! তাই তো? আজ কাল কার দিনে কী না হয় বলুতো? প্রেমও রিচার্জ হয়। আপনার জন্য রইল তেমনই রিচার্জ হওয়ার কিছু দুষ্টুমিস্টি টিপ। চেষ্টা করে দেখতে পারেন।

প্রথমেই ফোন

ফোন থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখুন। যে টুকু সময় নিজের ভালোবাসার মানুষটির সঙ্গে কাটাবেন চেষ্টা করুন সেই সময়টা শুধু তার হয়েই থাকতে। তাকেই পুরো সময়টা দিন। তিনি এটাই আশা করেন। এতে দেখবেন অনেকটা কাছে আসা যায়।

বিজ্ঞাপন

সপ্তাহান্ত

সপ্তাহের শেষে কোথাও ঘুরতে যাওয়া যেতে পারে। প্রতিদিনের কাজের চাপ, দুঃশ্চিন্তা আর সমস্যা থেকে একটু দূরে কোথাও। দু’ জনে একাকি, নিরিবিলিতে সময় কাটান। একে অপরের সঙ্গে নিজেদের ভালোলাগার কথাগুলি ভাগ করে নিন।

ডেটিং

ঠিক আগে যে ভাবে ডেটিং করতেন সেই ভাবেই আবার শুরু করুন। মাঝেমধ্যেই সময় বার করে সন্ধ্যে বেলাটা একটু অন্য রকম করে কাটান। বাড়ির বাইরে কোথাও, সেই আগের মতোই ফিটফাট হয়ে সেজেগুজে, ভালোমন্দ খেয়ে, পারলে রাতের খাবারটা খেয়ে ফিরলেন, এমন কিছু করুন। দেখবেন আগের সেই আমেজটা আবার ফিরে আসছে।

চিঠি

এখন যদিও চিঠির দিন গিয়েছে। দরকার পড়লেই ফোন অথবা টেক্সট ম্যাসেজ। আলাদা করে করে কাগজ কলম নিয়ে বসার আর সময়ই হয় না। তবুও ভালোবাসার মানুষটির জন্য দু’ কলম তো লেখাই যায়। বা আনমনের আঁকিবুকি। সেটাই দিন তাঁকে। দেখবেন তিনি খুশি হবেন। এতে পারলে মনের কথাও দু’ কলম ভরিয়ে দেবেন। ব্যাপারটা মন্দ হবে না। দু’ জনেই করুন এটা। একদম নস্ট্যালজিক।

কাছাকাছি

সময়ের খুব অভাব। তাই সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে ভুলবেন না। সুযোগ পেলেই চেষ্ট করুন একে অপরের কাছাকাছি থাকতে। ধরুন গাড়ি করে পাশাপাশি বসে কোথাও যাচ্ছেন। দু’ জনে হাতটা ধরে বসতেই পারেন। এটা অস্বাভাবিক কিছু না। কিন্তু এতে ভালোবাসার অনুভূতি জাগায়। সময় পেলে বাড়িতে একে অপরের ‘হেড মাসাজ’ করে দেওয়া যেতে পারে।  বা ধরুন অন্তত ৫ সেকেন্ডের জন্য একে অপরকে জড়িয়ে ধরা। এমনটা তো নিয়ম করে চলতেই পারে।

শখ

যদি দু’ জনেরই শখ এক হয় তা হলে ব্যাপারটা জমে যাবে। এই যেমন – এক সঙ্গে জিমে যাওয়া, ব্যায়াম করা, সকাল বা সন্ধ্যেতে এক সঙ্গে হাঁটতে যাওয়া, টেনিস খেলা, বা কোনো কাজ এক সঙ্গে করা, গাছের পরিচর্যা করা, ঘরগোছানো যে কোনো কিছুই হতে পারে। এক সঙ্গে করুন। তাতে দূরত্ব অনেক কমবে।

চমক

একে অপরকে চমকে দেওয়াটাও মনকে আনন্দ দেয়। অপরের বিষয়ে ভালো লাগা তৈরি করে। মাঝেমধ্যেই উলটো দিকের মানুষটার জন্য নতুন কোনো কিছু বানিয়ে চমক দেওয়া যেতেই পারে। তা খাবার হতে পারে। হাতে তৈরি অন্য যা কিছুও হতে পারে। বা সাধ্যের মধ্যে কোনো উপহার অথবা কোথাও বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যানও হতে পারে। তবে তা সে যাই হোক সবটাই রাখতে হবে টপ সিক্রেট।

পুরনো স্মৃতি রোমন্থন

সময় পেলেই প্রথম দেখা হওয়ার জায়গাটায় ফিরে যান। সেখানে খানিকটা নাটুকে আমেজ তৈরি করুন। যেন এটাই প্রথম দিন। সেই প্রথম দেখা। ‘এক বৈশাখে দেখা হল দু’ জনায়’। সে দিনের মতো অভিনয় করে, একে অপরকে অচেনা একটা ভাব করে পরিচয় পর্বে আসুন দেখবেন বেশ মজায় কাটবে সময়টা। অভিনয়টা করতে গিয়ে দেখবেন অনেক স্মৃতি হারিয়ে গেছে। কিন্তু তা-ও বেশ ভালো লাগবে। দেখবেন নতুন প্রেমের সেই ভাবটা কেমন ঘিরে ফেলে আপনাদের।

নিজেকে সময় দেওয়া

সবার শেষে বলি যে কোনো সম্পর্ককে ভালো রাখতে গেলেই অন্যতম একটা শর্ত হল নিজেকে ভালো রাখা। খুশি করা। তাই নিজের জন্য কিছুটা সময় বের করুন। একা একা সময় কাটান। এতে মানসিক শান্তি বাড়ে। আর ফেরার পর ভালোবাসার মানুষের সঙ্গে একটা মধুর ভাব তৈরি হয়।

এ ছাড়াও ধরাবাঁধা জীবনের বাইরে বেরিয়ে নিজেদের ভালো রাখার জন্য অনেক কিছুই মাথায় আসতে পারে আপনার। সেগুলোও চেষ্টা করে দেখতেই পারেন। মনের ইচ্ছা আর বল থাকলে সবটাই হয়। তাই নতুন বছরে পুরনো প্রেম রি-চার্জ করুন। আপনার জন্য রইল অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here