মাত্র ৮০ কোটি টাকায় বিক্রি হয়ে গেল ‘ব্র্যান্ড’ অ্যাম্বাসাডর

0
107

কলকাতা: খাতায় কলমে ‘সিনিয়র’ হতে পারল না। যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৫৮ সালে। সেই যাত্রা চূড়ান্ত ভাবে স্তব্ধ হয়ে গেল ২০১৭ সালে। ৫৯ বছরেই শেষ হয়ে গেল পথ চলা। প্রায় তিন বছর আগেই অবশ্য কোমায় চলে গিয়েছিল সে। এ বার মৃত্যুর ঘণ্টা বাজিয়ে দেওয়া হল। স্মৃতি হয়ে গেল ভারতের ব্র্যান্ড ‘অ্যাম্বাসাডর’। মাত্র ৮০ কোটি টাকায় বিক্রি হয়ে গেল গাড়ি প্রস্তুতকারক সংস্থা পিউজো এসএ-র কাছে।

উত্তরপাড়ায় হিন্দুস্তান মোটরসের কারখানায় যাত্রা শুরু করা এই গাড়ি ছিল আমজনতার। মন্ত্রী-আমলা, নায়ক-নায়িকার বিলাসবহুল গাড়ি থেকে শুরু করে একেবারে সাধারণ মানুষের যাত্রী-গাড়ি ট্যাক্সি, সবই ছিল ‘অ্যাম্বাসাডর’। শক্তপোক্ত, গোলগাল অ্যাম্বাসাডর ছিল সকলের প্রিয়।

আটের দশক পর্যন্ত বাজারে একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল অ্যাম্বাসাডরের। তার পর এল মারুতি ৮০০। কিন্তু তাতেও অ্যাম্বাসাডরের চাহিদা কমে যায়নি। ছবিটা বদলাতে শুরু করল নয়ের দশক থেকে। স্মার্ট চেহারার নিত্যনতুন ব্র্যান্ডের দেশি-বিদেশি গাড়ি যতই বাজারে ঢুকতে লাগল ততই পিছিয়ে পড়তে লাগল অ্যাম্বাসাডর। সময়ের সঙ্গে তাল রাখতে একটু-আধটু বদল ঘটল অ্যাম্বাসাডরের রূপে। কিন্তু  লাভ হল না। বাজারে টিকল না। নতুন নতুন স্মার্ট চেহারার গাড়ির কাছে হেরে যেতে লাগল। মালিকগোষ্ঠীরও যে গাড়িকে আধুনিক করার খুব চেষ্টা ছিল তা নয়। হাল ছেড়ে দিয়েছিল তারা। আটের দশকের মাঝামাঝিতেও বছরে ‌অ্যাম্বাসাডরের বিক্রি ছিল ২৪ হাজারের মতো। ২০১৩-১৪ সালে তা গিয়ে দাঁড়াল মাত্র আড়াই হাজারে। অবশেষে ২০১৪ সালের ২৪ মে বন্ধ হয়ে গেল হিন্দমোটরে উৎপাদন।

শেষ পর্যন্ত বিক্রি হয়ে গেল ব্র্যান্ড ‘অ্যাম্বাসাডর’। সিকে বিড়লা গ্রুপের তরফে জানানো হয়েছে,   ফ্রান্সের গাড়ি প্রস্তুতকারক সংস্থা পিউজো এসএ-র সঙ্গে চুক্তি অনুসারে ট্রেডমার্ক-সহ অ্যাম্বাসাডর ব্র্যান্ডটি ৮০ কোটি টাকায় হাত বদল হচ্ছে। এখন প্রশ্ন হল অ্যাম্বাসাডর ব্র্যান্ডটি কিনে কী করবে পিউজো? তারা কি নতুন করে এ দেশের বাজারে চালু করবে? নাকি অন্য কোনো পরিকল্পনা আছে?

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here