নারদ মামলার তদন্ত ভার সিবিআইকে দিল হাইকোর্ট

0
kolkata high court

কলকাতা : নারদ কাণ্ডের তদন্তে পুলিশ ঠিক মতো কাজ করেনি, এই মন্তব্য করে মামলার তদন্ত ভার সিবিআই—এর হাতে তুলে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মামলার যাবতীয় নথি হাইকোর্ট থেকে সিবিআইকে তুলে নিতে হবে। প্রাথমিক তদন্ত শেষ করে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সিবিআইকে রিপোর্ট পেশ করতে হবে উচ্চ আদালতের কাছে। আইপিএস অফিসার এসএমএইচ মির্জার বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিল ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি নিশীথা মাত্রে ও তপোব্রত চক্রবর্তীর ডিভিশন বেঞ্চ। নারদ ফুটেজে তৎকালীন বর্ধমানের পুলিশ সুপার মির্জাকে দেখা যান। আইপিএস অফিসার এসএমএইচ মির্জাকে অবিলম্বে সাসপেন্ড করতে বলেছে ডিভিশন বেঞ্চ।

প্রধান বিচারপতি নিশিথা মাত্রে তাঁর রায়ে বলেছেন, যে ঘটনা ঘটেছে তা অত্যন্ত গুরুতর অপরাধ। গণতন্ত্রের পক্ষে বিপজ্জনক। এর সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী-আমলারা। এ নিয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া দরকার। কলকাতা পুলিসের পক্ষে এই ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত করা সম্ভব নয়। তারা পুতুলের মতো কাজ করছে। তাদের একজন এই ঘটনায় জড়িয়ে। তাই সিবিআইয়ের হাতে এই দায়িত্ব দেওয়া হল।

ডিভিশন বেঞ্চ বলেছে, চণ্ডীগড় সেন্ট্রাল ফরেনসিক সায়েন্স ল্যাবরেটরির পরীক্ষায় প্রমাণ হয়েছে, নারদার ভিডিও ফুটেজগুলি অনেকাংশই সত্যি। ৭৩টি ফাইলের মধ্যে ৪৭টি ফাইল খোলা সম্ভব হয়েছিল। ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, যে ভিডিও ফুটেজগুলি খোলা হয়েছিল সেগুলি সর্বাংশে সত্যি।

বিজ্ঞাপন

৭২ ঘণ্টার মধ্যে প্রাথমিক অনুসন্ধান সম্পূর্ণ করতে সিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ। তারা বলেছে, অনুসন্ধানের পর তারা যদি বোঝে এই মামলা দ্রুত শুরু করা দরকার তা হলে অবিলম্বে এফআইআর দায়ের করবে তারা।  

বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক আগে নারদ স্টিং কাণ্ড নিয়ে রীতিমতো শোরগোল পড়ে যায় গোটা রাজ্য জুড়ে। দেশ জুড়েও শুরু হয় বির্তক। এই নিয়ে হাইকোর্টে একাধিক জনস্বার্থ মামলা হয়। শুক্রবার তিনটি জনস্বার্থ মামলার শুনানির পর আজ রায় দিল আদালত।

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here