বাজেট আবহে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ ঠিক কতক্ষণ নিরাপদ?

0
873
sensex,Nikkei 225,Dow Jones Industrial Average

বিশেষ প্রতিনিধি: বাজেটের দিকে তাকিয়ে লম্বা দৌড়ের প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে এ দেশের শেয়ার বাজার। আপাত দৃষ্টিতে এমনটা মনে হলেও বাজারের সমস্ত সূচক কিন্তু ভিতরে ভিতরে অন্য কোনো অঙ্ক কষতে থাকলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। সপ্তাহের প্রথম ট্রেডিং ডে-তেই বলা হয়েছিল, বাজেটকে সামনে রেখে নিফটি ১১২০০ বা ১১৩০০ পয়েন্ট ছুঁয়ে ফেলার চেষ্টা চালিয়ে যাবে। সেই চেষ্টা যে জারি রয়েছে তা সোমবারই দেখা গিয়েছে।

১১১৭৫ পয়েন্ট টপকে গিয়ে ১১২০০ থেকে কয়েক কদম পিছনে রয়ে গিয়েছে, এই যা। কিন্তু হাতে এখনও সময় রয়েছে। ওই সময়কে কাজে লাগাতে উঠেপড়ে লাগবে নিফটি। আর বিনিয়োগকারীরা?

তাঁরা কি হাত গুটিয়ে বসে থাকবেন? মোটেই না। উল্টে শেয়ারে বিনিয়োগ করার পরিবর্তে সীমিত সময়ের বিনিয়োগকারীরা লাভ তুলে নেওয়ার চেষ্টা করবেন। মাত্র ১৫-২০ দিন আগে কেনা এমন কিছু স্টক রয়েছে, যেগুলি প্রায় ১০ শতাংশের বেশি লাভ দিয়ে ফেলেছে। ফলে বিনিয়োগকৃত অর্থের উপর ওই লভ্যাংশ কোনো মনতেই হাতছাড়া করতে চাইবেন না তাঁরা। যে কারণে সেই তথাকথিত প্রফিট বুকিংয়ের খেলা চলতেই পারে বাজেটের ধাক্কায় উপরে ওঠা বাজারে।

বিজ্ঞাপন

তা হলে করণীয় কী একটি প্রখ্যাত ব্রোকার সংস্থার পরামর্শদাতা বলছেন, যতটা সম্ভব অঙ্ক কষে বিনিয়োগ করতে হবে। যদি দেখা যায়, নিফটি ১১ হাজারের উপরেই অবস্থান করছে, তা হলে বিনিয়োগকৃত অর্থ নিয়ে বেশি কিছু চিন্তাভাবনা করার প্রয়োজন নেই। কিন্তু নীচে নামলেই সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। ১১ হাজারের নীচে নামতে থাকলে ঠিক কোথায় পৌঁছতে পারে?

বাজারের মতিগতি দেখে এবং সাপোর্ট-রেজিস্ট্য়ান্সের অঙ্কের ফলাফলকে গুরুত্ব দিয়ে বলতে হয়, বাজেটে যত খারাপ কাণ্ডই ঘটুক না কেন, নিফটি ১০৮৩০-এর নীচে নামবে না আগামী কয়েক সপ্তাহে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ব্যাঙ্ক, তথ্যপ্রযুক্তি অথবা পরিকাঠামোর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সংস্থার স্টক কিনে ফেললে ভবিষ্যতে খুব একটা দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে উঠবে না। তবে এ ক্ষেত্রেও নির্দিষ্ট একটি নয়, একাধিক স্টকে বিনিয়োগ করাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here