শ্রীজাত-র কবিতার প্রতিবাদ কবিতা দিয়েই করা উচিত: অপর্ণা

0

ঠিক ছিল, তাঁর নতুন ছবি সোনাটা নিয়ে কথা হবে। কিন্তু মানুষটা যখন অপর্ণা সেন, তখন সাক্ষাৎকার কি আর সেখানে আটকে থাকতে পারে? অভিনয় থেকে পরিচালনা , সাম্প্রতিক দেশ ও রাজ্যের রাজনীতি, শিল্পীর স্বাধীনতা, নানা বিষয়ে খবর অনলাইনের রাকা রায়ের সঙ্গে অকপট আলোচনায় বাঙালির অন্যতম আইকন।

প্রঃ ‘সোনাটা’ ছবিটি আপনার অন্য ছবি থেকে কতটা আলাদা?

অপর্ণা:  আমার প্রতিটা নতুন ছবিতেই নতুন কিছু বিষয় আনার চেষ্টা করছি। তবে ‘সোনাটা’ ছবিটা মহেশ এলকুঞ্চওয়ারের লেখা একটি নাটক থেকে নেওয়া। সোহাগ সেনকে নাটকটা করতে দেখে আমার বেশ পছন্দ হয়। তখনই ভাবি, ছোটো একটা ছবি করাই যায়। প্রযোজকও রাজি হয়ে গেলেন, এ ভাবেই তৈরি হয়ে গেল ছবিটা। তিন মধ্যবয়সি মহিলা, তাঁদের বন্ধুত্ব, পারস্পরিক সম্পর্ক এবং নারীসত্তার নানা দিক উঠে এসেছে ছবিতে। ওই তিন মহিলা তাঁদের জীবনের নানা ক্রাইসিসকে কী ভাবে ওভারকাম করেছে, সেটাই তুলে ধরা হয়েছে ছবিতে। বাকিটা জানতে হলে দেখতে হবে ছবিটা।

বিজ্ঞাপন

প্র: মূল নাটক থেকে ছবিটা কতটা আলাদা?

অপর্ণা: সিনেমার প্রয়োজনে কিছুটা পালটাতে হয়েছে। যেমন মূল নাটকের বাইরেও দু’টি চরিত্র যুক্ত করা হয়েছে। কাজের বাই আর ট্রান্সজেন্ডারের চরিত্র দু’টো। তিন মহিলার কোনো বিবাহিত জীবন নেই, সন্তান নেই। কিন্তু বাই-এর একটি মেয়ে আছে, যে অন্তঃসত্ত্বা। তা হলে সমাজের অন্য ক্লাসকেও দেখানো হচ্ছে। আর ট্রান্সজেন্ডারদের তো আজকাল সমাজের অংশই ধরা হয়। তাই সে রকম এক জনকেও রাখা।

প্র: দর্শক অপর্ণা সেনকে এক জন ঝকঝকে, স্মার্ট, প্রগতিশীল বাঙালি হিসেবেই জেনে এসেছে চিরকাল। ‘সোনাটা’য় বাঙালি মহিলার চরিত্রটি আপনি নিজে না করে শাবানাজিকে দিলেন কেন?

অপর্ণা: আমাকে দর্শক যে সব চরিত্রে অভিনয় করতে দেখেছেন এত দিন, তার থেকে আলাদা কিছু করব বলেই সচেতন ভাবেই বাঙালি চরিত্রটা শাবানাকে দিয়েছি। তা ছাড়া ওকে খুব মানিয়েছে চরিত্রটায়। শাবানার সঙ্গে আগেও অনেক কাজ করেছি। আমার খুব ভালো বন্ধু।


হিন্দু হোক বা মুসলিম, আমি যে কোনো মৌলবাদের বিরোধিতা করি। নিজের মতো থাকার অধিকার দেশের সংবিধান আমাদের দিয়েছে। তোমরা কে বাধা দেওয়ার?


প্র: শাবানা আজমিকে দিয়ে রবীন্দ্রসংগীত গাওয়ানোর ভাবনাটা এল কী ভাবে?

অপর্ণা: ইন্ডাস্ট্রিতে অনেকেই জানে না, শাবানা খুব ভালো গান গায়।

প্র: এ বার তো সবাই জানতে পারল।

অপর্ণা: কী ভালো গেয়েছে বল! আসলে আমি চেয়েছিলাম, যে অভিনয় করছে সে নিজের গলাতেই গাক গানটা। তাই শাবানাকে শিখে গাইতে হল।

প্র: অভিনয় নাকি পরিচালনা, কোনটা বেশি পছন্দের?

অপর্ণা: পরিচালনাটাই বেশি পছন্দের।

প্র: অনেক দিন পর নিজের ছবিতে (সোনাটা) অভিনয়ও করলেন?

অপর্ণা: হ্যাঁ, বক্স অফিসের জন্য। প্রযোজকদের ইচ্ছেতেই করলাম।

প্র: এই ছবিতে তো কল্যাণ রায়কেও নিয়েছেন?

অপর্ণা: প্রথমে কল্যাণকে নেওয়ার কথা ভাবিনি। সবাই বলল ওকে নেওয়ার কথা।

প্র: কঙ্কনাকে আপনি নিজের ছবিতে ডিরেক্ট করেছেন, এখন কঙ্কনা নিজেও পরিচালক। ওর পরিচালনায় কাজ করবেন আপনি?

অপর্ণা: ও বললে এবং পছন্দমতো চরিত্র পেলে নিশ্চয় করব।

আরও পড়ুন : ‘সতী’ ছবিতে ৪১ দিন ডেট নিয়ে ৫ হাজার দেবে বলেছিল, করিনি: চিরঞ্জিত

 

প্র: ওর ছবি দেখেছেন? কেমন লেগেছে পরিচালনা?

অপর্ণা: ভালোই লেগেছে। প্রথম কাজ হিসেবে বেশ ভালো। কাজ শুরু করার আগেই আমায় চিত্রনাট্য শুনিয়েছিল। কঙ্কনার পরিচালনায় আসাটা কিন্তু কোয়েনসিডেন্স, অভিনয়টাও। আমি বা ও কেউই প্ল্যান করে এই লাইনে আসিনি।

প্র:  আপনার ছবিতে ধর্মীয় মৌলবাদ উঠে এসেছে নানা ভাবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশের আবহ সম্পর্কে কী মনে হচ্ছে?

অপর্ণা: খুব খারাপ লাগে জানো। হিন্দু হোক বা মুসলিম, আমি যে কোনো মৌলবাদের বিরোধিতা করি। নিজের মতো থাকার অধিকার দেশের সংবিধান আমাদের দিয়েছে। তোমরা কে বাধা দেওয়ার?

প্র: আপনি তো ছবি তৈরির সঙ্গে সরাসরি যুক্ত। দেশের সেনসর বোর্ড নিয়ে কী বলেন আপনি?

অপর্ণা: কী বলি বলো তো! সেই কবে থেকে তো লড়েই চলেছি। কিছুই সমাধান হচ্ছে না। এই তো ‘লিপস্টিক আন্ডার মাই বুরখা’ বিভিন্ন দেশের ফেস্টিভ্যালে ঘুরছে, পুরস্কৃত হচ্ছে, অথচ দেশেই রিলিজ হচ্ছে না।

প্র: দিন কয়েক আগেই শ্রীজাত-র কবিতা নিয়ে ঝড় বয়ে গেল।

অপর্ণা:  কোনো মানেই হয় না। কবি বা শিল্পী তাঁর মনের ভাব প্রকাশ করছে, তাতে যদি ভাবাবেগে আঘাত লাগে, তা বেশ তো, তোমরাও কবিতা লেখো, লিখে প্রতিবাদ জানাও। এফআইআর, ডেথ থ্রেট কেন দেবে? আমি এর প্রতিবাদ করছি।

প্র: আপনি তো বাঙালির আইকন, আপনাকে দেখে গত তিন দশক ধরে মহিলারা আপনার মতো হওয়ার স্বপ্ন দেখেছে। আপনার কী মনে হয়, কতটা এগিয়েছে মেয়েরা?

অপর্ণা: অবশ্যই এগিয়েছে। অনেক এগিয়েছে। এখনকার সিনেমার বিষয় থেকে সমাজের নানা স্তরে চোখ পড়লেই লক্ষ করা যায়, মেয়েরা আগের থেকে অনেক এগিয়েছে। তবে আরও এগোতে হবে। অনেকটা পথ এখনও বাকি।

প্র: সোনাটা আপনার অন্য ছবি থেকে কতটা আলাদা, কেন দর্শক যাবে এই ছবি দেখতে?

অপর্ণা: তিন জন মাঝবয়সি মহিলার চাওয়া-পাওয়া, অভিজ্ঞতা, জীবনদর্শন দেখানো হয়েছে। তবে সবার ওপরে বলতে পারি, জীবনকে উদ্‌যাপন করার কথাই উঠে এসেছে এই ছবিতে। আগামী ২১ এপ্রিল সোনাটার রিলিজ। দর্শকদের কাছে আবেদন, আসুন ছবিটা ভালো লাগবে আশা করি।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here