ওয়েবডেস্ক: আবার সে এসেছে ফিরিয়া!

মানে, নেটদুনিয়ায় হইচই ফেলে দিয়েছে আর কী বেগম করিনা কাপুর খান আর নবাব সইফ আলি খানের খুদে ছেলেটি। মাঝে কিছু দিন তার কোনো পাত্তা পাওয়া যায়নি। মুম্বইতে থাকলেও পুরনো অভ্যেস মতো সংবাদমাধ্যমের শিরোনামে তেমন কোনো হুলস্থূল ফেলেনি তৈমুর।

তবে অভ্যেস যাবে কোথায়! ফলে নতুন ছবি পোস্ট হতে না হতেই নেটদুনিয়ায় ফের শোরগোল পড়ে গেল পতৌদি বংশের ছোটো নবাবকে নিয়ে। সঙ্গে সঙ্গে এ-ও টের পাওয়া গেল বিলক্ষণ- খোকা ঘুমোলে পাড়া জুড়ায় ঠিকই, কিন্তু আদতে সবাই তার জেগে ওঠারই প্রতীক্ষায় থাকে। সে তটস্থ হয়ে হোক বা আহ্লাদে আটখানা হয়ে থেকে!

বিজ্ঞাপন

নতুন যে ছবিটি আপাতত তৈমুরের সোশ্যাল মিডিয়ায় রাজত্ব করছে, সেখানে তাকে দেখা যাচ্ছে একটা নীল প্রিন্টেড বেবি স্যুট পরে থাকা অবস্থায়। এলোমেলো হয়ে আছে চুলগুলো। ফুটফুটে বাচ্চাটাকে এলোমেলো চুলে দেখতে বেশ ভালো লাগারই কথা, না?

cutie pieee…aaye haye😝😍 💋 #mybaby #TaimurAliKhan #chotanawab👑

A post shared by Kareena kapoor khan 🔹 (@kareena_kapoor_khan_begum) on

তাজ্জবের ব্যাপারটা হল খুদের হাতে ধরা চিরুনি। একটা চুল আঁচড়ানোর ব্রাশ শক্ত করে ধরে রেখেছে সে হাতের মুঠোয়। শুধু তাই নয়, ব্রাশটা তাক করা রয়েছে তার চুলের কাছাকাছি-ই! ঠিক যেন চুল আঁচড়াচ্ছে তৈমুর!

এখন এ তো সবারই জানা যে এক বছরের একটা বাচ্চা নিজের চুল নিজে আঁচড়াতে পারে না। ও ক্ষমতা এই বয়সের শিশুদের থাকে না। তা হলে ব্যাপারটা কী?

জানা গিয়েছে, সেই সময় একটা পার্টিতে যাচ্ছিলেন করিনা ছেলেকে নিয়ে। চুল-টুল আঁচড়ে দেওয়ার পর খোকা মায়ের হাত থেকে ব্রাশটা কেড়ে নেয়। তার পর আর সেটা ফেরত দেওয়ার নামও করেনি তৈমুর। এখানেই শেষ নয়। ব্রাশটা নিয়ে সে নিজের চুল আঁচড়ানোর চেষ্টাও করতে থাকে।

তা সেটা এমন কিছু অবাস্তব ব্যাপারও নয়। কিছু দিন আগেই এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন সইফ আলি খান, তৈমুর এখন বেশ শক্ত করে কিছু একটা মুঠোয় ধরতে পারে। ফলে, ব্রাশটা ধরে রাখা তার পক্ষে এমন কিছু অসম্ভব ব্যাপার নয়।

আর চুল আঁচড়ানোর চেষ্টা?

ওটাও হিসেবের মধ্যেই পড়ে। এই বয়সের বাচ্চারা অনুকরণপ্রিয় হয়। বড়োদের যা করতে দেখে, সে সব তারাও করার চেষ্টা করে। এ ভাবেই শুনে শুনে কথা বলা, হাঁটা, সব কিছুতে রপ্ত হয় বাচ্চারা।

আশা করাই যায়, খুব তাড়াতাড়ি তৈমুরও কথা বলতে শুরু করবে!

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here