সুস্থ আছেন হিলারি, ফের প্রচারে নামছেন বৃহস্পতিবার

0
123

ভালো আছেন হিলারি ক্লিন্টন। অ্যান্টিবায়োটিক খেয়ে আর বিশ্রাম নিয়ে তিনি সুস্থ আছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসাবে কাজ চালানোর জন্য তিনি পুরোপুরি সক্ষম। তাঁর ডাক্তার লিজা বারডাক এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছেন। হিলারির স্বামী বিল ক্লিন্টনের আশা, বৃহস্পতিবার থেকেই ফের প্রচার শুরু করবেন হিলারি।

তাঁর অসুস্থতা নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। সে দিন রবিবার নিউ ইয়র্কে ৯/১১ স্মরণ অনুষ্ঠানে জনগণের কাছে স্পষ্ট হয়ে যায় তাঁর অসুস্থতা। বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি অনুষ্ঠানে। আগেই উঠে চলে যান। এমনকি ভ্যানে ওঠার সময় যে শরীর টলমল করছিল, ভিডিও-তে তা-ও ধরা পড়ে। তার পর চাউর হয়ে যায়, মেয়ে চেলসির অ্যাপার্টমেন্ট থেকে যাঁকে বেরোতে দেখা গেছে, তিনি আসল হিলারি ক্লিন্টন নন, হিলারির ডামি। পরে সরকারি ভাবে জানা যায়, নিউমোনিয়ায় ভুগছেন হিলারি। অসুস্থতা নিয়ে জল্পনায় ইন্ধন জোগান তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান দলের ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিব্রত অবস্থা হিলারির দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির।

হিলারির শারীরিক অবস্থা নিয়ে বরাবরই প্রশ্ন তুলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রায় প্রতিটি নির্বাচনীসভায় প্রায় নিয়ম করে একবার না একবার তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীর শারীরিক অবস্থার প্রসঙ্গ পেড়েছেন ট্রাম্প। জনতার উদ্দেশে বলেছেন, “আপনারা কি মনে করেন কমান্ডার ইন চিফ হিসাবে কাজ করার মতো স্ট্যামিনা হিলারি ক্লিন্টনের আছে ?” রবিবারের ঘটনার পর হাতে চাঁদ পেয়ে যান ট্রাম্প। বুধবার সন্ধ্যায় ওহাইওর ক্যান্টনে পাঁচ হাজার মানুষের এক সভায় ট্রাম্প বলেন, “আপনারা কি মনে করেন, হিলারি এক ঘণ্টা ধরে এ ভাবে দাঁড়িয়ে বক্তৃতা করতে পারবেন ? আমি তো মনে করি পারবেন না।” সেই সভাতেই ট্রাম্প শেষের দিকে বলেন, “আমরা চাই, তিনি সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন, আবার প্রচার শুরু করুন।”

সেলিব্রিটি ডাক্তার মেহমেত ওজ ট্রাম্পকে পরীক্ষা করে একটি টিভি চ্যানেলের টক শোয় কী বলেছেন, তার একটা এক পাতার সারাংশ রিপাবলিকান প্রার্থী তুলে দেন ভোটারদের হাতে। কিন্তু মেহমেত ওজ ট্রাম্পের স্বাস্থ্য সম্পর্কে ঠিক কী বলেছেন, অনুষ্ঠানটি সম্প্রচারিত না হওয়া পর্যন্ত ভোটারদের অপেক্ষা করতে হবে।

ট্রাম্পের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে মেহমেত ওজের বক্তব্য জানার আগেই ডাক্তার লিজা বারডাক তাঁর বিবৃতিতে হিলারির অসুস্থতা নিয়ে বিশদে জানিয়েছেন। নিউ ইয়র্কের মাউন্ট কিস্কোর কেয়ারমাউন্ট মেডিক্যাল হসপিটালের ইন্টারন্যাল মেডিসিনের প্রধান ডাক্তার বারডাক জানিয়েছেন, হিলারির চেস্ট স্ক্যান করে দেখা গেছে, তাঁর মৃদু ব্যাক্টেরিয়াল নিউমোনিয়া হয়েছিল। তাঁকে লেভাকুইন-এর ১০ দিনের কোর্স দেওয়া হয়েছিল। মরশুমি অ্যালার্জি থেকে আপার রেসপিরেটরি ট্র্যাক্ট-এ সংক্রমণ এবং কাশি, এই হল রোগের উপসর্গ। এ মাসের গোড়া থেকেই ভুগছিলেন হিলারি। গত ২ সেপ্টেম্বর তিনি ডাক্তার বারডাককে দেখান। তখন তাঁর অল্প জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও শারীরিক ক্লান্তি ছিল।

ডাক্তার লিজা বারডাক তাঁর চিঠিতে হিলারির স্বাস্থ্য সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য দিয়েছেন। তাঁর সাইনাস ও কানে সংক্রমণের ব্যাপারেও জানিয়েছেন। ব্রেনের সিটি স্ক্যান করে কোনো অস্বাভাবিকতা যে পাওয়া যায়নি তা-ও বলা হয়েছে। ৬৮ বছরের হিলারির রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখার জন্য যে কোনো ওষুধ খেতে হয় না তা-ও বলা হয়েছে।

ভালো আছেন হিলারি ক্লিন্টন। অ্যান্টিবায়োটিক খেয়ে আর বিশ্রাম নিয়ে তিনি সুস্থ আছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসাবে কাজ চালানোর জন্য তিনি পুরোপুরি সক্ষম। তাঁর ডাক্তার লিজা বারডাক এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছেন। হিলারির স্বামী বিল ক্লিন্টনের আশা, বৃহস্পতিবার থেকেই ফের প্রচার শুরু করবেন হিলারি।

তাঁর অসুস্থতা নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। সে দিন রবিবার নিউ ইয়র্কে ৯/১১ স্মরণ অনুষ্ঠানে জনগণের কাছে স্পষ্ট হয়ে যায় তাঁর অসুস্থতা। বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি অনুষ্ঠানে। আগেই উঠে চলে যান। এমনকি ভ্যানে ওঠার সময় যে শরীর টলমল করছিল, ভিডিও-তে তা-ও ধরা পড়ে। তার পর চাউর হয়ে যায়, মেয়ে চেলসির অ্যাপার্টমেন্ট থেকে যাঁকে বেরোতে দেখা গেছে, তিনি আসল হিলারি ক্লিন্টন নন, হিলারির ডামি। পরে সরকারি ভাবে জানা যায়, নিউমোনিয়ায় ভুগছেন হিলারি। অসুস্থতা নিয়ে জল্পনায় ইন্ধন জোগান তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান দলের ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিব্রত অবস্থা হিলারির দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির।

হিলারির শারীরিক অবস্থা নিয়ে বরাবরই প্রশ্ন তুলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রায় প্রতিটি নির্বাচনীসভায় প্রায় নিয়ম করে একবার না একবার তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীর শারীরিক অবস্থার প্রসঙ্গ পেড়েছেন ট্রাম্প। জনতার উদ্দেশে বলেছেন, “আপনারা কি মনে করেন কমান্ডার ইন চিফ হিসাবে কাজ করার মতো স্ট্যামিনা হিলারি ক্লিন্টনের আছে ?” রবিবারের ঘটনার পর হাতে চাঁদ পেয়ে যান ট্রাম্প। বুধবার সন্ধ্যায় ওহাইওর ক্যান্টনে পাঁচ হাজার মানুষের এক সভায় ট্রাম্প বলেন, “আপনারা কি মনে করেন, হিলারি এক ঘণ্টা ধরে এ ভাবে দাঁড়িয়ে বক্তৃতা করতে পারবেন ? আমি তো মনে করি পারবেন না।” সেই সভাতেই ট্রাম্প শেষের দিকে বলেন, “আমরা চাই, তিনি সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন, আবার প্রচার শুরু করুন।”

সেলিব্রিটি ডাক্তার মেহমেত ওজ ট্রাম্পকে পরীক্ষা করে একটি টিভি চ্যানেলের টক শোয় কী বলেছেন, তার একটা এক পাতার সারাংশ রিপাবলিকান প্রার্থী তুলে দেন ভোটারদের হাতে। কিন্তু মেহমেত ওজ ট্রাম্পের স্বাস্থ্য সম্পর্কে ঠিক কী বলেছেন, অনুষ্ঠানটি সম্প্রচারিত না হওয়া পর্যন্ত ভোটারদের অপেক্ষা করতে হবে।

ট্রাম্পের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে মেহমেত ওজের বক্তব্য জানার আগেই ডাক্তার লিজা বারডাক তাঁর বিবৃতিতে হিলারির অসুস্থতা নিয়ে বিশদে জানিয়েছেন। নিউ ইয়র্কের মাউন্ট কিস্কোর কেয়ারমাউন্ট মেডিক্যাল হসপিটালের ইন্টারন্যাল মেডিসিনের প্রধান ডাক্তার বারডাক জানিয়েছেন, হিলারির চেস্ট স্ক্যান করে দেখা গেছে, তাঁর মৃদু ব্যাক্টেরিয়াল নিউমোনিয়া হয়েছিল। তাঁকে লেভাকুইন-এর ১০ দিনের কোর্স দেওয়া হয়েছিল। মরশুমি অ্যালার্জি থেকে আপার রেসপিরেটরি ট্র্যাক্ট-এ সংক্রমণ এবং কাশি, এই হল রোগের উপসর্গ। এ মাসের গোড়া থেকেই ভুগছিলেন হিলারি। গত ২ সেপ্টেম্বর তিনি ডাক্তার বারডাককে দেখান। তখন তাঁর অল্প জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও শারীরিক ক্লান্তি ছিল।

ডাক্তার লিজা বারডাক তাঁর চিঠিতে হিলারির স্বাস্থ্য সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য দিয়েছেন। তাঁর সাইনাস ও কানে সংক্রমণের ব্যাপারেও জানিয়েছেন। ব্রেনের সিটি স্ক্যান করে কোনো অস্বাভাবিকতা যে পাওয়া যায়নি তা-ও বলা হয়েছে। ৬৮ বছরের হিলারির রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখার জন্য যে কোনো ওষুধ খেতে হয় না তা-ও বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here