‘চিন দেশের রূপকথা’; ছ’মাস ধরে এক সঙ্গে শরীরের মেদ ঝরাল পুরো পরিবার!

0
636

ওয়েবডেস্ক: স্নেহ উপচে পড়ছে টানা ছ’মাস ধরে। ব্যাপারটা কী? আরে বাবা, এ স্নেহ সে স্নেহ নয়। এ হচ্ছে স্নেহ পদার্থ। একসঙ্গে শরীরের যাবতীয় স্নেহ পদার্থ ঝরিয়ে ‘স্লিম’ এবং ‘ট্রিম’ হচ্ছে একটা গোটা পরিবার। ঘটনাটি ঘটছে চিনে। পরিবারের মিলমিশ তো রূপকথার গল্পের মতো হয়েই থাকে অনেক। ‘দশে মিলে করি কাজ/হারি জিতি নাহি লাজ’-এ বিশ্বাস করেন অনেকেই। কিন্তু তাই বলে ওজন কমিয়ে ‘ফিট’ হয়ে ওঠার চ্যালেঞ্জটাও একসঙ্গেই নেবেন এই পরিবার, কে জানত!

বিজ্ঞাপন

পরিকল্পনাটি প্রথম মাথায় আসে ৩২ বছরের জেসের। জেসের স্ত্রী তখন গর্ভাবস্থার শেষ দিক। সেই সময় জেসের মা বাবা তাঁদের কাছে থাকতে এলেন। বাবার ভুঁড়ি দেখে জেস পড়লেন মহা চিন্তায়। মাত্রাতিরিক্ত মদ্য পানের ফলে এমন হাল করেছেন বাবা। ব্যস! শুরু হল বাপ-ছেলের শরীর চর্চা। সকাল বেলা জগিং, তারপর জিমে গিয়ে মাস কয়েক চলল ঘাম ঝরানো। দিন দশেক অন্তর অন্তর রীতিমতো ছবি তুলে হিসেব রাখত জেস। সম্প্রতি সে ছবি টুইট করতেই ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এর মাঝে জেসের স্ত্রীর কোলে এসছে একটি ফুটফুটে সন্তান। প্রসব-পরবর্তী অতিরিক্ত মেদ ঝরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নিলেন নতুন মা। আর জেসের মা তো ওজন কমাবেন বলে তৈরিই ছিলেন। ওদের আর পায় কে? মাস ছয়েকের মধ্যে ভোল পালটে গেল পুরো পরিবারের। আর চ্যালেঞ্জ মাত্র ছ’মাসের জন্য নিলেও স্বাস্থ্যকর এই জীবনটাই বেছে নিতে চাইছেন পুরো পরিবার। হিন্দি সিরিয়ালে প্রায়শই দেখা যায় ‘আদর্শ’ পরিবার। বিপদের সময় কেউ কারোর গায়ে আঁচটুকু লাগতে দেন না। চিনা এই পরিবার যেন টিভির পর্দা থেকেই উঠে আসা। ফারাক একটাই। আঁচ নয়, একে অন্যের গায়ে মেদ সহ্য করতে পারেন না।

বিজ্ঞাপন
loading...