৩৬ ঘণ্টার মধ্যে জাইনাবের খুনিদের ধরতে হবে, পুলিশকে নির্দেশ লাহৌর হাইকোর্টের

0
250
pakistan girl raped and killed

ওয়েবডেস্ক: ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে জাইনাব আনসারির খুনিদের ধরতে হবে। পুলিশ প্রশাসনকে এমনই নির্দেশ দিল লাহৌর হাইকোর্ট। এ দিকে যত দিন এগোচ্ছে তত যেন ক্ষোভ বাড়ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

এক আইনজীবীর দায়ের করা একটি আবেদনের ভিত্তিতে শুক্রবার এই নির্দেশ দিয়েছে লাহৌরের আদালত। পঞ্জাব প্রদেশের কসুর জেলায় এর আগে অনেক বার এ রকম ঘটনা ঘটলেও কেন সেগুলি আদালতে আসেনি সে ব্যাপারে বিস্ময় প্রকাশ করেন প্রধান বিচারপতি সঈদ মনসুর আলি শাহ।

কসুর জেলায় ঘটে যাওয়ায় শিশু নির্যাতনের সব ক’টি ঘটনার ওপরেই রিপোর্ট দেওয়ার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। শিশু নির্যাতনের ঘটনা পাকিস্তানে নতুন নয়।  তবে এ বার যেন ধৈর্যের বাঁধটা ভাঙতে শুরু করেছে সেখানে।

জাইনাবের হত্যার প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে বৃহস্পতিবারই নিজের মেয়েকে কোলে নিয়ে খবর পড়েছিলেন পাকিস্তানের এক সংবাদ সঞ্চালিকা। বার্তা দিয়েছিলেন সমাজে মেয়ের গুরুত্ব নিয়ে। এ বার পাকিস্তানের আইনসভার দুই সদস্যের বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল স্থানীয় বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে।

ডন পত্রিকা জানিয়েছে, আইনসভার স্থানীয় দুই সদস্য, নঈম সফদার আনসারি এবং ওয়াসিম আখতারের বাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েচে জনতা। জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে এই দুই সদস্যের গাড়িও। প্রায় দশ ঘন্টা টানা বিক্ষোভ অবরোধ চালিয়ে যান বিক্ষুব্ধ জনতা।

জাইনাব-হত্যার প্রতিবাদে বুধবার একটি বিক্ষোভে পুলিশের গুলিচালনায় দু’জনের মৃত্যুর পর পরিস্থিতি আরও অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আধা সেনা নামাতে হয় পঞ্জাব সরকারকে। ঘটনায় প্রবল চাপে পঞ্জাব সরকার। বৃহস্পতিবার জাইনাবের বাড়িতে গিয়েছিলেন প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শহবাজ শরিফ। দুষ্কৃতীদের ব্যাপারে কোনো সন্ধান দিতে পারলে পুরস্কারবাবদ দশ মিলিয়ন টাকা (পাকিস্তানি মুদ্রায় ৫৭ লক্ষ) দেওয়ার ঘোষণা করে সরকার।

এ দিকে, এই ঘটনার প্রতিবাদে চারটে আলাদা প্রস্তাব পাশ করে সিন্ধু প্রদেশের আইনসভা। আইনসভার সদস্যদের দাবি, অপরাধীদের দ্রুত গ্রেফতার করে ফাঁসি দেওয়া হোক।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here