বসবাসের মানের নিরিখে ২৩১টির তালিকায় নাম নেই কোনো ভারতীয় শহরের

0
108

নয়াদিল্লি : স্বচ্ছ ভারত অভিযান, নাগরিকদের নানা আধুনিক সুযোগসুবিধা দেওয়ার ব্যবস্থা করেও ভারতের একটিও শহরের নাম উঠল না তালিকায়। এই তালিকা মারসারের ‘কোয়ালিটি অব লিভিং অ্যন্ড ইনফার্স্ট্রাকচার র‍্যাঙ্কিং’-এর। সেখানে টানা আটবার প্রথম হল অস্ট্রিয়ার ভিয়েনা। মোট ২৩১টি শহর নিয়ে এই তালিকা তৈরি করা হয়েছিল। এই নিয়ে ১৯তম বর্ষে পড়ল এই গবেষণা।

তালিকার প্রথম দিকে বেশির ভাগটা জুড়ে আছে ইউরোপের বিভিন্ন শহর। যেমন এই তালিকার দ্বিতীয়তে রয়েছে জুরিখ, চার নম্বরে মিউনিখ, ছয়ে ডুসেলডর্ফ, ফ্রাঙ্কফুর্ট সাতে, আটে জেনিভা, কোপেনহাগেন নয় নম্বরে আর বাসেল রয়েছে তালিকার দশ নম্বরে। অ-ইউরোপীয় শহরের মধ্যে তৃতীয়তে রয়েছে অকল্যান্ড আর পাঁচ নম্বরে ভ্যাঙ্কুভার।

                                            ভারতের একটি শহর

এই গবেষণাটি করা হয়েছে বেশ কয়েকটি বিষয়ের দিকে নজর রেখে। তার মধ্যে রয়েছে রাজনৈতিক দৃঢ়তা, স্বাস্থ্য-সুরক্ষা, শিক্ষা, অপরাধ, পুনর্বিন্যাস, পরিবহন-সহ আরও অনেক কিছুই। এই বিষয়গুলির নিরিখেই ভারতের কোনো শহরই যোগ্য প্রমাণিত হয়নি এই সার্ভের জন্য।

এশিয়া আর লাতিন আমেরিকার অবস্থা মন্দের ভালো। এশিয়ার মধ্যে যে শহরটি তালিকার প্রথমে সেটা হল সিঙ্গাপুর, স্থান ২৫। লাতিন আমেরিকার প্রথম শহর হল মন্টেভিডেও। এর স্থান তালিকার ৭৯ নম্বরে।

পরিসংখ্যান বলছে, ভিয়েনার নাগরিকরা সেখানকার কাফে কালচার আর জাদুঘর, থিয়েটার-অপেরা থেকে লাভ পায়। এখানকার বেসরকারি পরিবহন ভাড়া, বাড়ি ভাড়া ইত্যাদি অন্যান্য পশ্চিমি দেশের থেকে অনেক কম।

                                             সিঙ্গাপুর

এই গবেষণায় পরিকাঠামোর ওপরও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তালিকার শহরগুলোতে বিদ্যুৎ সরবরাহ, পানীয় জল, পরিবহন, রাস্তাঘাট, ট্রাফিক ব্যবস্থা, টেলিফোন-ইন্টারনেট পরিষেবা, স্থানীয় বিমানবন্দর থেকে আন্তর্জাতিক বিমান ওঠানামার পরিমাণের ওপর নজর রাখা হয়েছে। তা ছাড়াও রয়েছে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবস্থা, একাধিক বিকল্প ব্যবস্থাও। এই দিক থেকে তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে সিঙ্গাপুর, দ্বিতীয়তে রয়েছে ফ্রাঙ্কফুর্ট আর মিউনিখ।

মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার শহরগুলির নাম রয়েছে পরিকাঠামোগত তালিকার এক্কেবারে শেষ দিকে। ব্রাজাভিলে ২২৮ নম্বরে, সানা ২২৯ আর বাগদাদ ২৩০ নম্বরে। এই শহরগুলিকে বসবাসের জন্য এক্কেবারে খারাপ জায়গা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

এত ঢাকঢোল পেটানোর পরেও ভারতের কোনো শহরেরই এই তালিকায় কেন স্থান হল না, সেটাই প্রশ্ন। 

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here