যোগী আসবেন বলে শহিদের বাড়িতে বসল সোফা-এসি, চলে যেতেই খুলে নেওয়া হল

0
574

লখনউ: নয়া বিতর্কে জড়িয়ে পড়ল উত্তরপ্রদেশ সরকার। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠল দেশের সুরক্ষায় প্রাণ দেওয়া এক জওয়ানের পরিবারকে অপমান করার।

গত ১ মে, পাকিস্তানের বর্ডার অ্যাকশন টিমের হামলায় শহিদ হন রাজ্যের দেওরিয়া জেলা নিবাসী বিএসএফ জওয়ান প্রেম সাগর। পাকিস্তান তাঁর মুণ্ডু কেটে নিয়েছে বলে অভিযোগও করে ভারত। শহিদ জওয়ানের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। মুখ্যমন্ত্রী যাবেন বলে জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়। মুখ্যমন্ত্রীর যাতে এতটুকু কষ্ট না হয়, সে জন্য তাঁর বাড়িতে বসে যায় এসি মেশিন এবং সোফা। এমনকি জওয়ানের ছোট্টো বাড়িতে বিছিয়ে দেওয়া হয় কার্পেট, টেবিলে বিছিয়ে দেওয়া হল গেরুয়া ম্যাট।

মুখ্যমন্ত্রী শহিদের বাড়ি এলেন, আধঘণ্টা তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বললেন। সদস্যদের হাতে চার লক্ষ টাকার চেকও ধরিয়ে দিলেন এবং ফিরে গেলেন। তার পরই ঘটল সে ঘটনা। মুখ্যমন্ত্রী ফিরে যাওয়ার আধঘণ্টা পরেই তাঁর বাড়ি থেকে খুলে নেওয়া হল এসি, তুলে নেওয়া হল সোফা।

বিজ্ঞাপন

এতেই অপমানিত বোধ করছেন প্রেম সাগরের পরিবার। তাঁর ছেলে ঈশ্বরচন্দ্র বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর আরামের যাতে ব্যাঘাত না ঘটে সে জন্য এসি, কার্পেট, সোফা এমনকি নতুন তোয়ালের ব্যবস্থাও করা হয়। কিন্তু তিনি বেরিয়ে যাওয়ার কিছু ক্ষণের মধ্যেই সব খুলে নিয়ে যাওয়া হয়।”

এই নিয়ে জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের প্রশ্ন করা হয়। সবাই একে অপরের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে দায় এড়াতে চেয়েছেন। ভিআইপিদের আপ্যায়নের প্রোটোকল মেনেই সব কিছু করা হয়েছে, এই যুক্তি দিয়ে এডিএম বীরেন্দ্র কুমার দোহরের বলেন, “কোনো অতিথি এলে, আমাদের তাঁকে আপ্যায়নের ব্যবস্থা করতে হয়। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী যে দিন এসেছিলেন, সে দিন আমি ছিলাম না। ঘটনার ব্যাপারে কোনো সঠিক তথ্য আমার কাছে নেই।”

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here