কোনো মহিলা পুলিশ ছাড়াই বিএইচইউ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভরত ছাত্রীদের বেধড়ক পেটাল পুলিশ

0
304
Protesting Women BHU Students

বারাণসী : ক্যাম্পাসে এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানকে কেন্দ্র করে তুলকালাম বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএইচইউ)। এই শ্লীলতাহানির প্রতিবাদে গত তিন দিন ধরে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন ছাত্রীরা। শনিবার রাত ১১টা নাগাদ আন্দোলরত ছাত্রীদের হঠাতে ক্যাম্পাসে পুলিশ ঢোকে। আন্দোলনকারীরা উপাচার্যের বাসভবনে ঢোকার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। পুলিশের সঙ্গে শুরু হয় বচসা, ধাক্কাধাক্কি। এর পর পুলিশ লাঠি চালাতে শুরু করে বলে অভিযোগ। ওই পুলিশবাহিনীতে কোনো মহিলা পুলিশ ছিল না।

এনডিটিভি একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে এক ছাত্রীকে বেধড়ক পেটাচ্ছে পুলিশ। পুলিশের লাঠিচার্জে বেশ কয়েক জন ছাত্রী আহত হয়েছেন।

এক ছাত্র এনডিটিভিকে জানিয়েছে, পুলিশ কোনো প্ররোচনা ছাড়াই লাঠি চালিয়েছে। এমনকি ছাত্রীদেরও রেয়াত করেনি। আন্দোলকারীরা তিনটি বাইকে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ। অন্য দিকে পুলিশের দাবি, ছাত্রছাত্রীরা পুলিশকে লক্ষ করে পাথর ছোড়ে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক থেকে আন্দোলকারীদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

আরও পড়ুন : কাশ্মীরে সংঘর্ষে জঙ্গির মৃত্যু, গ্রেনেড হামলায় আহত সাত

কী ঘটেছিল?

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী অভিযোগ করে, বৃহস্পতিবার সন্ধেতে যখন সে হোস্টেলে ফিরছিল, তখন ক্যাম্পাসের মধ্যেই তিন জন বাইকে চড়ে এসে তার শ্লীলতাহানি করে। বাধা দিলে তারা পালিয়ে যায়। ঘটনার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তাকর্মী সেখানে ছিলেন, কিন্তু তিনি কিছুই করেননি। বিষয়টি হোস্টেল ওয়ার্ডেনকে জানালে তিনি উলটে ছাত্রীটিকে প্রশ্ন করেন কেন এত দেরি করে সে হোস্টেলে ফিরছিল।

ওয়ার্ডেনের এই ধরনের মন্তব্যে ক্ষুদ্ধ হয় ছাত্রীরা এবং তারা ধরনায় বসে। অঙ্কিতা সিং নামে এক ছাত্রী জানিয়েছেন, ‘‘ঘটনার পর থেকে ছাত্রীটি ট্রমার মধ্যে চলে গিয়েছে। এই ঘটনা যে কারো সঙ্গে ঘটতে পারে। ক্যাম্পাস মোটেই সবার জন্য নিরাপদ নয়।’’

কী জানাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ?

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস বিশাল বড়ো এবং তা জনগণের জন্য উন্মুক্ত। সব জায়গায় পুলিশ রাখা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তবে তারা আশ্বাস দিয়েছে নিরাপত্তার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘‘বিক্ষোভকারীদের ৮০ শতাংশ বহিরাগত। এটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত আন্দোলন।’’

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here