স্ত্রী-সহ শ্বশুরবাড়ির মানসিক অত্যাচার, ফেসবুকে লাইভ আত্মহত্যা যুবকের, দেখুন ভিডিও

0
1043
suicide

ওয়েবডেস্ক: ছেলে হওয়ার আনন্দে সবাইকে মিষ্টি বিলি করেছিলেন কর্মসূত্রে কর্নাটকবাসী ক্রেন-অপারেটর পরমজিৎ সিং। কেউ ঘুণাক্ষরেও বুঝতে পারেননি তখন, ওই মিষ্টিতেই জড়িয়ে আছে বিদায়ের বার্তাও।

পঞ্জাব পুলিশ জানিয়েছে, ছেলে হওয়ার খবর পেয়ে কর্নাটক থেকে গুরদাসপুরের ভইনি মিয়াঁ খান এলাকার নোনোয়াল জিন্দর গ্রামে পৌঁছোন পরমজিৎ। তার আগেই তিনি অমৃতসরের শ্বশুরবাড়ির গ্রাম দাবুরজি থেকে দেখে এসেছিলেন ছেলের মুখ। কিন্তু তাঁর মুখ দেখে কেউই বুঝতে পারেননি ভিতরে ভিতরে কতটা ভেঙে পড়েছেন তিনি।

স্ত্রী বলজিৎ কৌর তাঁর বাবা উপকার সিং এবং মা সরবজিৎ কৌরের সঙ্গে হামেশাই মানসিক চাপ দিতেন পরমজিৎকে। তাঁরা চাইতেন, পরমজিৎ পৈতৃক জমিজমা, বাড়ি বিক্রি করে তাঁদের সঙ্গে এসে থাকুন। কিন্তু পরমজিৎ তাতে রাজি না হওয়ায় মানসিক নির্যাতনের মাত্রা বাড়তে থাকে, জানিয়েছেন ভইনি মিয়াঁ খানের থানার অফিসার সরবজিৎ সিং।

পুলিশ এ-ও জানিয়েছে, বুধবার রাতে যখন পরমজিৎ ফেসবুকে লাইভ হয়ে আত্মহত্যা করছেন, তখন ঘটনাটি প্রথম চোখে পড়ে তাঁর বাহরিনবাসী তুতো ভাই রঞ্জিৎ সিংয়ের। তিনি তখনই ফোন করে পরমজিতের বাবাকে খবরটা দিতে চান। কিন্তু পরমজিতের বাড়ির ফোন বেজেই যায়। অবশেষে রঞ্জিৎ ফোন মারফত ঘটনাটি জানান তাঁর বাবাকে। শেষ পর্যন্ত খবর পেয়ে যখন ঘরের দরজা ভাঙা হয়, ততক্ষণে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন পরমজিৎ।

গুরদাসপুরের সিনিয়র পুলিশ সুপারিন্টেন্ডেন্ট এইচ এস ভুল্লার জানিয়েছেন, ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৬ এবং ৩৪ নম্বর ধারায় পরমজিতের স্ত্রী বলজিৎ, শাশুড়ি সরবজিৎ এবং শ্বশুর উপকারের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here