‘মুসলিম মহল্লায় মিছিল করে পাকিস্তান-বিরোধী স্লোগান তোলাই এখন রেওয়াজ’, কাসগঞ্জ হিংসা প্রসঙ্গে বললেন জেলাশাসক

0
kasganj violence

বরেলি (উত্তরপ্রদেশ): প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন থেকে সাম্প্রদায়িক হিংসায় তটস্থ হয়েছে উত্তরপ্রদেশের কাসগঞ্জ। ঘটনায় এক জনের মৃত্যুও হয়েছে। কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনা গেলেও সেই হিংসার আগুন এখনও ধিকিধিকি জ্বলছে। এরই মধ্যে এই হিংসার প্রসঙ্গে নতুন মাত্রা যোগ করলেন উত্তরপ্রদেশের বরেলির জেলাশাসক।

মঙ্গলবার নিজের ফেসবুকে প্রাক্তন সেনাকর্মী ওই জেলাশাসক লেখেন, “এখন একটা অদ্ভুত রেওয়াজ দেখা যাচ্ছে। মুসলিম অধ্যুষিত এলাকা দিয়ে মিছিল করো আর পাকিস্তান-বিরোধী স্লোগান তোলো। কেন, মুসলিমরা কি পাকিস্তানি?” জেলাশাসকের ইঙ্গিত যে হিন্দুত্ববাদীদের দিকে সেটা বোঝাই যায়।

কাসগঞ্জের ঘটনায় এখনও পর্যন্ত অন্তত একশোজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে হিংসায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ফেসবুকে এই পোস্টটির পরে অনেকের সমর্থনও যেমন পান সিংহ আবার অনেকেই তাঁকে তুলোধোনা করতে থাকেন। বিতর্ক বাড়ছে দেখে সেই পোস্টটি মুছে দেন তিনি। এর পরেই হিন্দুস্তান টাইম্‌সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “ঘটনাটা খুব বড়ো ছিল না। কিন্তু তার প্রভাবটা বিশাল বড়ো। কাসগঞ্জের এসপিকে বদলি করা হয়েছে। এ রকম ঘটনা ঘটলে রাজ্যে যে উন্নয়নমূলক কাজ চলছে তা ব্যাহত হবে।”

ভারতীয় সেনায় কমিশনড অফিসার ছিলেন সিংহ। ২০১৭ সালে তিনি বরেলির জেলাশাসকের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। গত বছর বরেলির খেলাম এলাকায় কয়েকজন শিবভক্ত একটি মুসলিম এলাকা দিয়ে মিছিল করে যাওয়ার সময়ে পাকিস্তান বিরোধী স্লোগান দিচ্ছিল। সেই প্রসঙ্গে তিনি লিখেছিলেন, “এই স্লোগান দেওয়ার কী মানে! আমার বাড়ির সামনে দিয়ে কেউ এই স্লোগান দিলে আমিও থামিয়ে দেব।”

যে হেতু জেলাশাসকের সঙ্গে ভারতীয় সেনার নামটা জড়িয়ে গিয়েছে তাই সিংহের বিরুদ্ধে কিছু বলতেও পারছে না বিজেপি। রাজ্যের অর্থমন্ত্রী তথা বরেলির বিজেপি বিধায়ক রাজেশ অগরওয়াল বলেন, “তিনি প্রাক্তন সেনা অফিসার। সুতরাং আমি নিশ্চিত যে তিনি কখনোই ভারত-বিরোধী বা পাকিস্তানপন্থী কোনো মন্তব্য করবেন না।”

উল্লেখ্য, এই হিংসার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার উত্তরপ্রদেশের রাজ্যপাল রাম নায়েক বলেছিলেন, এই ঘটনা উত্তরপ্রদেশের ইতিহাসে একটা কলঙ্ক।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here