মহারাষ্ট্র জ্বলছে, মোদী কেন ‘মৌনি বাবা’? প্রশ্ন সংসদে

0
793
modi

নয়াদিল্লি: রাগ বিনিময়ের অদ্ভুত ঘটনার সাক্ষী হল সংসদ। জাতিদাঙ্গার উত্তাপে জ্বলছে মহারাষ্ট্র। আজ সেখানে চলছে বনধ। অন্য দিকে সেই ইস্যুতেই সংসদে চলছে চরম বিতণ্ডা। কংগ্রেসের তরফে মহারাষ্ট্রের ঘটনায় সরাসরি আরএসএসের ভূমিকার কথা বলতেই ক্ষোভে ফেটে পড়লেন বিজেপি সাংসদরাও।

গত সোমবারই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল পুনে। দলিতদের উপর মরাঠীদের আক্রমণের প্রতিবাদেই শুরু হয়ে যায় জাতিদাঙ্গা। গত কাল সেই ক্ষোভের আগুন ছড়িয়েছে মুম্বাইয়েও। গোটা মহারাষ্ট্র জুড়ে ছড়িয়েছে যার প্রভাব। একাধিক জায়গায় গাড়ি-বাড়ি ভেঙে দেওয়া, জ্বালিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি প্রাণ গিয়েছে এক যুবকেরও। আজ সে রাজ্যে বনধের ডাক দিয়েছেন বাবা সাহেব আম্বেদকরের নাতি তথা প্রাক্তন সাংসদ প্রকাশ। তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন কংগ্রেস, সিপিএম সহ একাধিক বিজেপি বিরোধী দল। বিজেপিও থেমে নেই। আরএসএসের সংগঠন শক্ত হওয়ায়, তারাও নিজেদের মতো কর্মসূচি নিয়েছে। তবে পরিস্থিতি যে মোটের উপর ভালো নেই, সে খবরই বিক্ষিপ্ত ভাবে আসছে।

এদিকে সংসদে এই নিয়ে চলছে চরম বাকযুদ্ধ। কংগ্রেসের পক্ষে মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, দেশে দাঙ্গা বাড়ছে। অহিংসা কমছে। মহারাষ্ট্রের জাতিদাঙ্গা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কেন নীরবতা পালন করছেন, তা বোঝা যাচ্ছে না। খাড়গে দাবি করেন, “মোদী নীরব থাকতে পারেন না। দেশের কোথাও যখন এ ধরনের ঘটনা ঘটছে মোদী তখন ‘মৌনি বাবা’র মতো আচরণ করছেন।”

বিজেপির পক্ষে অনন্ত কুমার বলেন, কংগ্রেস প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়েই এই ধরনের বিশৃঙ্খলাকে প্রশ্রয় দিচ্ছে।কংগ্রেস মানুষকে বিপথে চালিত করছে। জাতিসত্ত্বার রাজনীতি করছে। তিনি বলেন, “মহারাষ্ট্রের মানুষের কাছে শান্ত থাকার আর্জি না জানিয়ে ব্রিটিশদের মতো ‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল’ নীতি প্রয়োগ করছে।”তবে কংগ্রেস মনে করে, মহারাষ্ট্রে শিব সেনা বা আরএসএসের বিরুদ্ধে মুখ খোলার কোনো অধিকারই নেই ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর। যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোয় একটি অঙ্গরাজ্যে যখন শাসক দলের সহযোগীরা অন্যায় কাজ করে চলেছে, প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং তখন ‘মৌনি বাবা’র ভূমিকা পালন করছেন

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here