৬৩ শিশুর মৃত্যু, অপরাধীদের ক্ষমা করা হবে না : হাসপাতাল পরিদর্শনের পর আদিত্যনাথ

0
187

গোরক্ষপুর : উত্তরপ্রদেশে গোরক্ষপুরের বাবা রাঘব দাস মেডিক্যাল কলেজ ঘুরে দেখলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এই হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে গত ক্যেক দিনে ৬৩ জন শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রবিবার হাসপাতাল ঘুরে দেখার পর মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ৬৩ জন শিশুর মৃত্যুর ঘটনার তদন্তের জন্য রাজ্য সরকার একটা কমিটি গঠন করেছে। প্রধান সচিবের সভাপতিত্বে এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তের ভিত্তিতে অপরাধীকে কঠিন থেকে কঠিনতর শাস্তি দেওয়া হবে।

এ দিন তাঁর সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জে পি নড্ডা। তিনি বলেন, এই হাসপাতালে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে অভিজ্ঞ চিকিৎসকদের একটা দল পাঠানো হয়েছে, তাঁরা যাবতীয় সাহায্য করবেন। অন্য দিকে কংগ্রেসের মুখপাত্র জয়বীর শেরগিল বলেন, প্রধান সচিবের অধীনে এই তদন্ত একটা ‘আইওয়াশ’ মাত্র। তাই তাঁদের পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টের তত্ত্বাবধানে তদন্তের দাবি জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, শোনা গিয়েছে অক্সিজেন সরবরাহকারী সংস্থার বিল না মেটানোয় অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছিল সরবরাহকারী সংস্থা। এর ফলেই অক্সিজেনের ঘাটতি ছিল হাসপাতালে। তবে প্রাথমিক ভাবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এ দিন আদিত্যনাথ বলেন, ৯ আগস্ট এই হাসপাতাল পরিদর্শনে এসেছিলেন। সে দিনের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে অক্সিজেন অভাবের এই বিষয়টি মোটেই তুলে ধরা হয়নি। বেশ কিছু দিন ধরে গোরক্ষপুরে জাপানি এনকেফ্যালাইটিসের প্রকোপ বেড়েছে। তিনি এই রোগ নির্মূল করার জন্য নানা ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, এই শিশুদের মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর মতো সংবেদনশীল আর কেউ নন। গত শনিবার আদিত্যনাথ হাসপাতালে অক্সিজেন অভাবের অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছিলেন।

বিরোধী দলকে আক্রমণ করেন আদিত্যনাথ। বলেন, এর আগে কংগ্রেসের আমলে এই ব্যাপারে গোরক্ষপুরকে কোনো ভাবেই সাহায্য করা হয়নি। তৎকালীন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী গোলাম নবি আজাদ এখানে এসেছিলেন। সমস্যা জানার পর আজাদ বলেছিলেন, এই ব্যাপারে কিছুই করার নেই, পুরোটাই রাজ্যের ব্যাপার। আদিত্যনাথ আরও বলেন, যাঁদের অনুভূতিই নেই সেই তারাই কিনা এই বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করে কাটা ঘায়ে নুন ছেটানোর চেষ্টা করছেন।

এ দিন নাড্ডা বলেন, এই অঞ্চলের দীর্ঘ দিনের সমস্যা জাপানি এনকেফ্যালাইটিস। এর সঙ্গে মোকাবিলা করার জন্য কেন্দ্রের তরফ থেকে রাজ্যকে সব রকম সাহায্য দেওয়া হবে।

অন্য দিকে এক হাত নিয়েছে কংগ্রেসও। বিষয়টিতে সুপ্রিম কোর্টের নজরদারিতে তদন্তের দাবি জানানো হয়েছে। তাদের অভিযোগ আদিত্যনাথের সরকার মূল বিষয়টা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। কংগ্রেস মুখপাত্র জয়বীর শেরগিল সংবাদিক সম্মেলনে বলেন, দীর্ঘ কয়েক দিন ধরেই শিশুমৃত্যুর ঘটনা ঘটেই চলেছে। এই সবই সরকারের ভুল পদক্ষেপ আর গাফিলতির কারণে। এর জন্য দায়ী মুখ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী আর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তিনি বলেন, এই সরকারের হাতে রক্ত লেগে আছে।

এ দিকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ৩০ জন শিশু মারা যাওয়ার পরই বাবা রাঘব দাস হাসপাতালের প্রধান ডাঃ মিশ্রকে বরখাস্ত করা হয়। তিনি রবিবার পদত্যাগ করেন। এই বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থনাথ সিংহ বলেন, তাঁর ভুল কাজের জন্য ইতিমধ্যেই তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসা শিক্ষামন্ত্রী আশুতোষ টান্ডন বলেন, তিনি অক্সিজেন সরবরাহকারীদের প্রাপ্য টাকা দিতে দেরি করেছিলেন। তাঁর এই দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজের জন্যই তাঁকে বরখাস্ত করা হয়েছে। আম্বেদকর নগরের রাজকীয় মেডিক্যাল কলেজের প্রিন্সিপ্যাল ডাঃ পি কে সিংহকে এই হাসপাতালের অ্যাডিশন্যাল প্রিন্সিপ্যাল হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

সূত্র সৌজন্যে এএনআই

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here