বিমুদ্রাকরণের ক্ষোভে প্রলেপ দিতে মধ্যবিত্তের আয়করে সাশ্রয়
ছাড় মাঝারি ব্যবসাতেও

0
78

নয়াদিল্লি: বিমুদ্রাকরণের জেরে অনেক টাকা প্রবেশ করেছে ব্যাঙ্কে ও সরকারের তহবিলে। প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রী বারবারই দাবি করেছেন সেই টাকা ব্যয় হবে দারিদ্র দূরীকরণে।বিমুদ্রাকরণের ফলে ক্ষুব্ধ নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষ। তাঁদের ক্ষতে প্রলেপ দেওয়া দরকার, তা বলা হয়েছেল মঙ্গলবার প্রকাশিত অর্থনৈতিক সমীক্ষা রিপোর্টে। রিপোর্টের সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই এদিন আড়াই থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা আয়ের মানুষদের কর অর্ধেক করে দিলেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।

  • ২.৫ লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত যাদের আয়, তাদের এতদিন দিতে হত ১০ শতাংশ আয়কর। সেই পরিমাণ কমে হল ৫ শতাংশ। আয় ৩ লক্ষ হলে, এতদিন করযোগ্য ৫০,০০০টাকার জন্য কোনো কর দিতে হত না। এখনও তা বহাল থাকবে।
  • পরবর্তী সব ধাপে কর একই থাকছে।
  • ৫০ লক্ষ থেকে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত আয়ে বাড়তি সারচার্জ ১০%।
  • ১ কোটি টাকার ওপর আয়ে ১৫% বাড়তি সারচার্জ।
  • যে সব সংস্থার টার্নওভার ৫০ কোটি টাকার কম, তাদের কর ৩০% থেকে কমিয়ে ২৫% করা হল। 

যারা কর দেন না বা আয় গোপন করেন, তাদের জন্য কড়া আইন কেন্দ্র আনতে চলেছে বলে এদিন জানান অর্থমন্ত্রী। 

অরুণ জেটলি বলেন, কর থেকে সরকারের আয় গত ২ বছরে ১৭% বৃদ্ধি পেয়েছে। 

গত আর্থিক বছরে যত ৩.৭ কোটি মানুষ আয়কর দিয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৪ লক্ষ মানুষ জানিয়েছেন, তাদের আয় ১০ লক্ষের বেশি। ৭৬ লক্ষ মানুষ জানিয়েছেন তাদের আয় ৫ লক্ষের বেশি্। এদিন বাজেট বক্তৃতায় এই তথ্য দেন অর্থমন্ত্রী। জেটলির এই ঘোষণা থেকেই পরিষ্কার, আরও বেশি বেশি মানুষকে কর দিতে উৎসাহিত করার জন্যই এই করছাড়ের ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর। 

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here