ঝুলেই রইল তিন তালাক বিরোধী বিলের ভবিষ্যৎ

0
316
parliament of india rajya sabha

নয়াদিল্লি: লোকসভায় মসৃণ ভাবে পাশ হওয়া তিন তালাক বিরোধী বিল আটকে গিয়েছে রাজ্যসভায়। গত কালই সংসদের উচ্চকক্ষে পেশ করা হয় এই বিল। কিন্তু রাজ্যসভায় এনডিএর সাংসদ সংখ্যা পর্যাপ্ত না থাকায় চরম বিরোধিতার সম্মুখীন হয়ে আজও নিষ্পত্তি হল না বিল বিতর্ক।

কংগ্রেস-সহ কেন্দ্রের অন্যান্য বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি গত বুধবারই দাবি করেছিল, বিলের ত্রুটিপূর্ণ অংশগুলির সংশোধন করার স্বার্থে সংসদীয় কমিটিতে পাঠাতে হবে। কিন্তু এক বার কমিটিতে পাঠালে বিলের যে ব্যাপক কাটাছেঁড়া হতে পারে, সেই আশঙ্কাতেই বিজেপি মোটেই সেই প্রস্তাবে রাজি হয়নি। আজও কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি দিনের শেষে মন্তব্য করেন, ‘কংগ্রেস তিন তালাক বিল নিয়ে বিশ্বাসঘাতকতা করল।’ এমনকী লোকসভায় ধ্বনিভোটে বিলটি পাশ করে রাজ্যসভায় বাধাপ্রাপ্ত হয়ে জেটলি বলেছিলেন, ‘কংগ্রেস দ্বিতীয় মানের রাজনীতি করছে।’ কিন্তু  বিল পাশ করানোর জন্য বিজেপি বিরোধীদের যত বেশি আক্রমণ করছেন, বিরোধীরাও তত বেশি প্রতিবাদের সুর চড়াচ্ছে।

সংসদের শীতকালীন অধিবেশনের শেষ দিন আগামীকাল। স্বাভাবিক ভাবে ওই শেষ দিনেও বিলটি নিয়ে বিরোধীরা নিশ্চুপ থাকবে না বলেই ধরে নেওয়া যেতে পারে। আবার বিজেপির সংসদীয় কমিটির কাছে না পাঠানোর অনীহা বিলের ভবিষ্যতের সামনে বড়ো সড়ো প্রশ্ন চিহ্ন খাড়া করল। কারণ আগামীকাল কোনো সুরাহা না মিললে ওই বিল স্বাভাবিক ভাবেই তোলা থাকবে পরবর্তী অধিবেশনের জন্য।

বিজ্ঞাপন

কারণ শুধু রিবোধী রাজনৈতিক দলগুলিই নয়, বিজেপির সহযোগী দল তেলুগু দেশমও বিলের বিরোধিতায় নেমেছে। অন্য দিকে রাজ্যসভার সাংসদ সংখ্যার বিচারে খুব একটা পিছিয়ে না থাকা তৃণমূল কংগ্রেসও প্রবল ভাবে আপত্তি জানিয়েছে এই বিলের। তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এত দিন বিল নিয়ে কোনো মন্তব্য না করলেও গত কালই তিনি বলেছেন, ‘এই বিল নিয়ে বিজেপি রাজনীতি করছে। এই বিল পাশ হলে বিপদে পড়বেন মুসলিম মহিলারা।’ এ ছাড়া সমস্ত বিরোধীরা মনে করে, ওই বিলে তিন বছরের কারাবাসের যে আইনটি বলবৎ করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে, তা কোনো মতেই কাম্য নয়।

সব মিলিয়ে চরম হতাশার মুখে পড়েছে বিজেপি। যা স্পষ্ট হয়েছে সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অনন্ত কুমারের কথায়। তিনি বলেন, ‘লোকসভায় এক জন সদস্যও এই বিলের বিরুদ্ধে ছিলেন না। কিন্তু রাজ্যসভায় কেন কেউ এই বিলকে সমর্থন করছেন না?’

তাঁর প্রশ্নের উত্তর অতীব সহজ। সদস্য সংখ্যার ঘাটতিই যে বিজেপিকে বিপাকে ফেলল, সে কথা তিনিও বিলক্ষণ জানেন।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here