বাতিল নোটের ৯৭% ফিরল ব্যাঙ্কে, মানতে নারাজ আরবিআই

0
100

নয়াদিল্লি : পুরোনো ৫০০ আর ১০০০ টাকার নোট ব্যঙ্কে জমা দেওয়ার মেয়াদ শেষ হয়েছে গত ৩০ ডিসেম্বর। ৯৭% বাতিল নোট জমা পড়েছে ব্যাঙ্কে। পরিসংখ্যানটা অবাক করার মতোই। প্রশ্ন উঠছে, কালো টাকার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর ‘সার্জিকাল স্ট্রাইক’ তবে কতটা সফল হল? রাতারাতি দেশ থেকে দুর্নীতি দূর করতে বাতিল করে দেওয়া হল ৮৬ শতাংশ নগদ। এটিএম-এর লাইনে দাঁড়িয়ে অথবা চিকিৎসার জন্য টাকা জোগাড় করতে না পেরে বলি হল শতাধিক প্রাণ। এ ছাড়া নাগরিকের নিত্যনতুন হয়রানি তো আছেই। ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তোলা এবং জমা দেওয়া নিয়ে প্রায় রোজই নিয়ম পালটেছে আরবিআই। বদলে শুধু কেন্দ্র থেকে মিলেছে ‘কষ্ট করলে কেষ্ট মিলবে’ গোছের সান্ত্বনা। আর এত কিছুর পর বাতিল নোটের প্রায় পুরোটাই ফিরে আসল ব্যাঙ্কে!

ব্লুমবার্গের রিপোর্ট বলছে, ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৬ পর্যন্ত ব্যাঙ্কে জমা পড়েছে মোট ১৫ লক্ষ কোটি টাকা। অথচ আরবিআই-এর দেওয়া হিসেব ১২.৫ লক্ষ কোটি  টাকা। সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকনমি (সিএমআইই)-এর পক্ষ থেকে প্রকাশিত পরিসংখ্যান বলছে, বিমুদ্রাকরণের ঘোষণার পর থেকে সরকারের ত্রৈমাসিক বিনিয়োগ প্রকল্প এক লাফে ২৩৬০০০ কোটি থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ১২৫০০০ কোটিতে। ৮ নভেম্বর, ২০১৬র আগে প্রতি দিন গড়ে ২০৯৭ কোটি টাকার বিনিয়োগ ঘোষণা করা হত সরকার থেকে। শেষ দুই মাসে ৬১ শতাংশ কমে এখন প্রতি দিন গড়ে ৮২৪ কোটি টাকার বিনিয়োগ হচ্ছে।

হিসেব নিয়ে কতটা চিন্তায় রয়েছে কেন্দ্র? ব্যাঙ্কে জমা অর্থের পরিমাণ যে ৯৭ শতাংশ, সে খবর নাকি এখনও পৌঁছোয়নি অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির কাছে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক যথারীতি দাবি করেছে, ব্যাঙ্কের দেওয়া হিসেব নাকি ঠিক নয়। নতুন করে হিসেব করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে ব্যাঙ্কগুলোকে।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here