সাত দিনে সাত বার চেষ্টা, উড়ান-ভাগ্য খোলেনি চটিপেটানো এমপির

0
129

নয়াদিল্লি: বিমানকর্মীকে চটিপেটা করার পর থেকে দেশের প্রায় সমস্ত বিমানসংস্থায় ব্রাত্য শিবসেনা সাংসদ রবীন্দ্র গায়কোয়াড়। তবু তিনি মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছেন বিমানে যাতায়াত করার। কিন্তু কেউ তাঁকে তাদের উড়ানে নিতে রাজি নয়। গত সাত দিনে সাত বার উড়ানের টিকিট কাটার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন শিবসেনা সাংসদ।

জানা গিয়েছে, দিল্লি যাওয়ার জন্য ওই সাংসদ তিন বার তাঁর ‘ওপেন টিকিট’ অনুমোদন করানোর চেষ্টা করেছেন, দু’ বার নতুন টিকিট কাটার চেষ্টা করেছেন। প্রতি বারই ব্যর্থ হয়েছেন। নতুন টিকিট কাটার ক্ষেত্রে নামের একটু আধটু পরিবর্তন করেছেন। কিন্তু এয়ার ইন্ডিয়া সাংসদের কেরামতি ধরে ফেলেছে, হয় তাঁকে বুকিং করতে দেয়নি আর না হয় বুকিং বাতিল করে দিয়েছে।

এ ছাড়াও ২৪ মার্চ দিল্লি থেকে পুনে যাওয়ার জন্য ওই সাংসদ এক বার এয়ার ইন্ডিয়া এবং এক বার ইন্ডিগো-তে টিকিট কাটেন। দু’ বারই তাঁর টিকিট বাতিল করা হয়।

সূত্রের খবর, শিবসেনা এমপি ২৯ মার্চ এআই ৮০৬ (মুম্বই-দিল্লি) এবং এআই ৫৫১ (হায়দরাবাদ-দিল্লি) উড়ানে টিকিট কাটার চেষ্টা করেন। পরে ৩০ মার্চ এয়ার ইন্ডিয়ার নাগপুর-দিল্লি উড়ানে টিকিট কাটতে যান। কিন্তু প্রতি বারই বিমানসংস্থা ধরে ফেলে। তিনি টিকিট কাটতে পারেননি। মুম্বই-দিল্লি উড়ানে ‘ওপেন তিকিটে’ চেষ্টা করেছিলেন। অন্য দু’টি ক্ষেত্রে নতুন টিকিট কাটছিলেন নামের হেরফের করে। এক বার রবীন্দ্র গায়কোয়াড় নামে, অন্য বার অধ্যাপক ভি রবীন্দ্র গায়কোয়াড় নামে।

আরও পড়ুন; মন মতো আসন না পেয়ে বিমানকর্মীকে ২৫ ঘা দিলেন শিবসেনা সাংসদ

এআইয়ের এক কর্মকর্তা জানান, “এমপি-র কাছে ওপেন টিকিট রয়েছে। তিনি সেগুলো অনুমোদন করানোর চেষ্টা করছেন। আমরা বোঝার চেষ্টা করছি এ রকম কতোগুলো ওপেন টিকিট এবং ‘ফ্রিকোয়েন্ট ফ্লায়ার টিকিট’ তাঁকে দেওয়া হয়েছে, যাতে সেগুলো বাতিল করে দেওয়া যায়।” আরেক জন কর্মকর্তা বলেন, “আমাদের কোনো উড়ানে যাতে মাননীয় এমপি চড়তে না পারেন, তার জন্য আমাদের কাছে প্রয়োজনীয় নির্দেশ রয়েছে। আমাদের কোনো উড়ানে হয়তো তিনি তাঁর ওপেন টিকিট অনুমোদন করাতে পারেন, কিন্তু তিনি উড়ানে চড়তে পারবেন না।”

রবীন্দ্র গায়কোয়াড় যাতে ফের উড়ানে চড়তে পারেন তার জন্য তাঁর দল শিবসেনা লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজনের সঙ্গে কথা বলেছে। স্পিকারও অসামরিক বিমান পরিবহণমন্ত্রী এ জি রাজুর সঙ্গে কথা বলেছেন। কিন্তু কাজের কাজ হয়নি। তাঁকে উড়ানে নিয়ে যাওয়ায় বিমানকর্মী ও সহযাত্রী এবং সার্বিক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে যে বিপদ রয়েছে, তা বিবেচনা করেই এয়ার ইন্ডিয়া, জেট, স্পাইস জেট, ইন্ডিগো, গোএয়ার এবং ভিস্তারা জানিয়ে দিয়েছে তারা ওই সাংসদকে তাদের উড়ানে ওঠার অনুমতি দেবে না।

এক বেসরকারি বিমানসংস্থা এক পদস্থ কর্তা বলেন, “এয়ার ইন্ডিয়ার ৬০ বছরের এক বিমানকর্মীকে চপ্পল দিয়ে মারা এবং দিল্লি বিমানবন্দরে তাঁকে বিমান থেকে ছুড়ে ফেলার চেষ্টা করার পরেও ওই সাংসদ অনুতপ্ত নন। বিমানে তাঁর ওঠা আমাদের নিষিদ্ধ করতে হয়েছে কারণ আমাদের দেশে কোনো ‘নো ফ্লাই’ তালিকা নেই। তা থাকলে গায়কোয়াড়ের নাম ওই তালিকায় উঠে যেত এবং তিনি আর উড়ানে চড়তেই পারতেন না।”

সৌজন্যে : টাইমস অফ ইন্ডিয়া

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here