তিন তালাকের শুনানি হবে ১১ মে, জানিয়ে দিলেন প্রধান বিচারপতি

0

নয়াদিল্লি : সুপ্রিম কোর্ট মুসলমানদের ‘তিন তালাকে’র বৈধতা নিয়ে শুনানির দিন ধার্য করল ১১ মে। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহর জানিয়ে দিলেন, এই মামলার শুনানির জন্য আদালত গ্রীষ্মকালীন ছুটিকে কাজে লাগাবে। সে ক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে কিনা সে ব্যাপারে ভেবে দেখুক কেন্দ্র। এই মামলার শুনানির জন্য পাঁচ জন বিচারপতির একটি সাংবিধানিক বেঞ্চ গঠন করা হয়েছে। এই সময় তিন তালাক ছাড়াও নিকাহ হালাল আর মুসলিম পুরুষদের একাধিক বিবাহের বিষয়ও আদালতে তোলা হবে বলে জানালেন প্রধান বিচারপতি।


এই মামলার শুনানির জন্য আদালত গ্রীষ্মকালীন ছুটিকে কাজে লাগাবে। সে ক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে কিনা সে ব্যাপারে ভেবে দেখুক কেন্দ্র।


তিন তালাক, নিকাহ হালাল আর মুসলিম পুরুষদের একাধিক বিয়ে নিয়ে মামলা করেছিলেন সায়রা বানু নামে এক মহিলা। এর প্রেক্ষিতে গত বছরের ৭ অক্টোবর শীর্ষ আদালত জানায়, লিঙ্গ সাম্য, ধর্মনিরপেক্ষতার নিরিখে তিন তালাক, নিকাহ হালাল, পুরুষদের বহুবিবাহের বৈধতা বিচার করে দেখা হবে।                           

অন্য দিকে ২৭ মার্চ অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড জানিয়ে দেয়, তিন তালাকের মতো সংবেদনশীল বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায় দেওয়া ঠিক নয়। এটা সম্পূর্ণ ধর্মীয় ব্যাপার। তা ছাড়া বিশ্বের অন্য জায়গার সঙ্গে ভারতের মুসলমানদের সংস্কৃতিগত কিছু পার্থক্য আছে। ফলে এতে হস্তক্ষেপ করলে সমস্যা শুরু হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

  আরও পড়ুন : তিন তালাকের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতে মামলার বিরোধিতায় মুসলিম ল বোর্ড

কেন্দ্রীয় সরকার জানায়, তারা এই তিন তালাকের বিরোধী। এতে মহিলাদের মৌলিক অধিকার খর্ব হয়। এই অধিকার যাতে খর্ব না হয়, তা দেখবে সরকার। এটা ইসলাম ধর্মের কোনো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়। আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, সরকার এই ‘তিন তালাক’ প্রথা সম্পূর্ণভাবে বিলোপ করতে চায়।

প্রসঙ্গত, ‘তিন তালাক’ হল মুখে তিন বার ‘তালাক’ বলে অনায়াসেই বিবাহবিচ্ছেদ করতে পারেন এক জন মুসলিম পুরুষ। ‘নিকাহ হালাল’ হল, এক জন পুরুষ তাঁর ডিভোর্স করা স্ত্রীকে ততক্ষণ পর্যন্ত পুনর্বিবাহ করতে পারবেন না, যতক্ষণ না সেই স্ত্রী অন্য কোনো পুরুষকে বিয়ে করেন আর সেই স্বামীর মৃত্যু হয় বা তাঁদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়। এই বিষয়গুলিকেই ধর্মীয় বিষয় বলে তুলে ধরছে মুসলিম ল’ বোর্ড।     

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here