অপরাজিত তকমা খুইয়ে আইজল থেকে ফিরছে ইস্টবেঙ্গল

0
76

আইজল এফসি-১ (রালতে)

ইস্টবেঙ্গল – ০

আইজল: কয়েকটা টুকরো তথ্য।

এক : আই লিগের ইতিহাসে এই প্রথম ইস্টবেঙ্গলকে হারাল আইজল এফসি। 

দুই :  এ বারের আই লিগে ঘরের মাটিতে এখনও পর্যন্ত অপরাজিত আইজল।

তিন: ৭ জানুয়ারি, ইস্টবেঙ্গল আই লিগ অভিযান শুরু করেছিল ঘরের মাটিতে আইজল এফসি-র সঙ্গে খেলে। সেই ম্যাচে ৮৮ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকেও তিন পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে পারেনি খালিদ জামিলের ছেলেরা। গোল শোধ করে দিয়েছিলেন বুকেনিয়া। 

চার: হেরে যাওয়া সত্ত্বেও আই লিগের শীর্ষেই থাকল লাল হলুদ। ১০ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ২১। অন্যদিকে জিতেও তিন নম্বরেই থাকল আইজল এফসি। ১০ ম্যাচ খেলে তাদের পয়েন্ট ২০। 

এবার ম্যাচের কথা। গোটা ম্যাচে কখনওই মনে হয়নি ইস্টবেঙ্গল জিততে পারে। ৯০ মিনিটই প্রাধান্য রেখে খেললেন রালতে, জয়েশ, কামো, আম্মানরা। ম্যাচের একদম শুরুর দিকটায় প্লাজা, ওয়েডসনদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল। কিন্তু মিনিট ২০ গড়াতেই  মাঠ জুড়ে কেবল লাল জার্সি। একের পর এক আক্রমণের ঝড় আছড়ে পড়ছিল ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্সে। মাঝমাঠকে এড়িয়ে লম্বা বলের যে খেলায় দলকে অভ্যস্ত করিয়েছেন মরগ্যান। এদিন তা কোনো কাজে আসেনি। পাহাড়ি পরিবেশে লম্বা বল খেলায় হয়তো আত্মবিশ্বাসী ছিলেন না ফুটবলাররা। মাঝমাঠে মেহতাব কিছুটা চেষ্টা করেছেন, সে তো তিনি করবেনই।

মরগ্যানের ম্যাচ রিডিং-এর বহু প্রশংসা শোনা যায়। শোনার কারণ নিশ্চয় আছে। কিন্তু এদিন হাফটাইমের ওই পনেরো মিনিটে দলের হাল ফেরাতে পারেননি ব্রিটিশ বৃদ্ধ। দ্বিতীয়ার্ধ শুরু হওয়ার কিছু পরেই দু’দলের মধ্যে ধাক্কাধাক্কিতে খেলা কিছুক্ষণ বন্ধও থাকে। তার একটু পরেই গোল। বাঁ দিক থেকে আসা সেন্টার ক্লিয়ার করতে পারল না লালহলুদ ডিফেন্স। চমৎকার ক্ষিপ্রতায় গোল করে গেলেন রালতে। সেখানেই শেষ না। তারপরও বেশ কয়েকবার ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্সকে কাঁপিয়ে দিয়েছেন খালিদ জামিলের ছেলেরা। কয়েকবার বল গোলপোস্টের ধারের জালেও লাগল। কিছু সুয়োগ ইস্টবেঙ্গল তৈরি করার চেষ্টা করেছিল বটে। তবে, সেগুলো বলার মতো কিছু নয়। লাভ হয়নি ম্যাচের শেষের দিকের মরণকামড়ের চেষ্টাতেও।

আবহাওয়ার সুবিধা ? হতেই পারে। আইজল কিন্তু এদিন যোগ্য দল হিসেবেই ৩ পয়েন্ট পেল। 

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here