আইজল সমর্থকদের অভব্যতার শিকার এবার রেফারিরা, ৪৫ মিনিট পর মাঠ ছাড়ল মোহনবাগান

1

আইজল: ইস্টবেঙ্গল ম্যাচের পর আইজল সমর্থকদের অভব্যতার শিকার হয়েছিলেন ইস্টবেঙ্গল কোচ খালিদ জামিল এবং লালহলুদ ফুটবলাররা। আগের বার আইজলকে আই লিগ জিতিয়ে খালিদ কেন লালহলুদে চলে এসেছেন, তার জবাবদিহি চেয়ে খালিদ ও ইস্টবেঙ্গল দলকে স্টেডিয়ামে আটকে রেখে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন আইজল সমর্থকরা। শেষ পর্যন্ত ব্যারিকেড করে ইস্টবেঙ্গলকে বের করতে হয়েছিল রাজীব গান্ধী স্টেডিয়াম থেকে। পরদিন ভোরবেলা হোটেল ছেড়ে বন্ধ বিমানবন্দরের কাছে লুকিয়ে ছিলেন খালিদ ও ইস্টবেঙ্গলের সহকারী কোচ সিদ্দিকি।

আরও পড়ুন: আইজলে গিয়ে এই প্রথম পয়েন্ট পেল মোহনবাগান

মোহনবাগান অবশ্য তেমন কিছুর মুখোমুখি হয়নি। কিন্তু হলেন মোহনবাগান বনাম আইজল এফসি ম্যাচের রেফারি ও ফোর্থ অফিশিয়ালরা। আইজল সমর্থকদের অভিযোগ ম্যাচে একটি ন্যায্য পেনাল্টি দেওয়া হয়নি তাঁদের প্রিয় দলকে। বক্সের মধ্যে হাতে বল লেগেছিল ওয়াটসনের।

বিজ্ঞাপন

সেখানেই শেষ নয়। এদিন নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা শেষ হওয়ার ১ মিনিট আগে লাল কার্ড দেখানো হয় আইজলের লাইবেরিয়ান অধিনায়ক আলফ্রেড জারিয়ানকে। তিনি বলের লড়াই ছাড়াই আক্রম মোগ্রাবিকে বিশ্রিভাবে ফাউল করেন। ফলে ৩০ জানুয়ারি আইজলের প্রথম এএফসি চ্যাম্পিয়নস লিগ অভিযানে ইরানের জব আহান ক্লাবের বিরুদ্ধে মাঠে নামতে পারবেন লাইবেরিয়ান ফুটবলারটি।

এই অবস্থায় খেলা শেষ হওয়ার পর রেফারিদের কিছুক্ষণ মাঠে আটকে রাখেন আইজল কর্তারা। তারপর ফোর্থ অফিশিয়ালরা নিজেদের নির্ধারিত জায়গায় বসার পর দর্শকাসন থেকে তাঁদের দিকে ইঁট, জলের বোতল উড়ে আসতে থাকে। প্রায় ৪৫ মিনিট সেখানেই বসেছিলেন তাঁরা। তারপর তাঁদের বের করা সম্ভব হয়। স্টেডিয়ামে ড্রেসিংরুম ও গ্যালারির ব্যাবধান খুব কম থাকায় সে সময় মোহনবাগান খেলোয়াড়রাও ড্রেসিংরুমে আটকে ছিলেন। শেষ পর্যন্ত ৪৫-৫০ মিনিট পর তাঁদের পেছনের দরজা দিয়ে বের করা হয়।

বিজ্ঞাপন
loading...

1 মন্তব্য

  1. এটা ফুটবলের পক্ষে খুব খারাপ,এই ভাবে উন্নতি করা সম্ভব নয় ভারতীয় ফুটবলের।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here