১০০ টাকার কমেই মাঠে বসে দেখার সুযোগ বিশ্বকাপ ম্যাচ

0
70

সানি চক্রবর্তী :

নবসাজে সজ্জিত যুবভারতীতে বসে বিশ্বকাপের ম্যাচ দেখার সুযোগ পাবেন ফুটবলপ্রেমীরা। এই তথ্য এতদিনে কমবেশি সকলেরই জানা। তবে সেই ম্যাচ দেখতে খরচ করতে হবে ১০০ টাকারও কম। এই সুখবরটা যুবভারতী পরিদর্শনে এসে জানিয়ে গেলেন হ্যাভিয়ের সেপ্পি। অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের টুর্নামেন্ট কমিটির প্রধান যুবভারতীর কাজের অগ্রগতি দেখে উচ্ছ্বসিত। বলে গেলেন, “দারণ কাজ হচ্ছে। খুব খুশি আমরা। স্টেডিয়ামটা এত বড়ো বলেই হয়তো অগ্রগতিটা চোখে সে ভাবে পড়ছে না। তবে মার্চের শেষে ফিফার চূড়ান্ত পরীক্ষার আগে ৯৫ শতাংশ কাজ হয়ে যাবে।”

কলকাতায় যুব বিশ্বকাপের আসর বসাতে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে যে দারুণ সাহায্য পাচ্ছেন তা-ও জানাতে ভুললেন না হ্যাভিয়ের। উল্লেখ্য, নবসাজে যুবভারতীর পুরো দর্শকাসনেই বসছে বাকেট চেয়ার। এ ছাড়াও অত্যাধুনিক মানের সব রকম সুবিধা-সহ আন্তর্জাতিক মানের করে গড়ে তোলা হচ্ছে কলকাতার গর্বকে। গোটা কর্মকাণ্ডের জন্য খরচ হচ্ছে প্রায় ১৫০ কোটি টাকা। কেন্দ্রীয় সরকারের যৎসামান্য (১৫ কোটি) সাহায্য ছাড়া গোটাটাই বহন করছে রাজ্য সরকার। তাই প্রতিযোগিতার আয়োজক ফিফা থেকে শুরু করে রাজ্য সরকার, কেউই যে এই প্রতিযোগিতাকে শুধু অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ হিসেবে দেখছে না সেটা বেশ পরিষ্কার। বরং ভারতের মাটিতে প্রথমবার বিশ্বকাপের আসরকে জমজমাট করে তোলার পথে সব রকম কাজই করা হচ্ছে।

বাকেট চেয়ার বসানোর জেরে ১ লক্ষ ১৫ হাজার থেকে যুবভারতীর দর্শকধারণ ক্ষমতা কমে দাঁড়াচ্ছে ৮৭ হাজার। কিন্তু যুব বিশ্বকাপের মঞ্চে কি আদৌ এত সমর্থক আসবেন? ফুটবলের মক্কার নাড়ির টান বুঝেই হ্যাভিয়েরের কথায়,

“‘কলকাতাতেই শুধু ২.৫ থেকে ৩ কোটি লোকের বাস। তাই ফুটবলের শহর নিশ্চয়ই ভালো ফুটবল দেখতে আসবে।” সঙ্গে টিকিটের দামের প্রসঙ্গে তাঁর সংযোজন, “একটা সিনেমা দেখতে বা বাকি লিগের খেলা দেখতে যা খরচ হয়, তার থেকে কম হবে টিকিটের মূল্য। এখন নির্দিষ্ট কিছু বলা না গেলেও ১০০ টাকার উপরে হবে না মূল্য।”

২৪ দেশের মধ্যে ৫২টি ম্যাচ হবে ৬টি জায়গায়। তাই নিদেনপক্ষে ৮টি ম্যাচ পেতে চলেছে যুবভারতী। পাশাপাশি সরকারি ঘোষণা না হলেও, কলকাতাতেই ফাইনাল হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই। ফিফার যে প্রতিনিধিদল গোটা বিশ্বকাপ পরিচালনার জন্য আসবে, তারাও কলকাতাতেই নিজেদের কার্যালয় গড়বে। দিল্লিতে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও ম্যাচ এবং কলকাতায় ফাইনাল ও সমাপ্তি অনুষ্ঠান হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। অক্টোবরের ৬ থেকে ২৮ প্রতিযোগিতা হলেও গ্রুপস্তরের পরে দিল্লিতে ম্যাচ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ, গত বারে দেওয়ালির পরে দিল্লির দূষণের প্রভাব এখনও টাটকা সবার স্মৃতিতে। প্রতিযোগিতা শুরুর আগে যুবভারতীতে কোনো ম্যাচ হওয়ার সম্ভাবনা যদিও নেই। মাঠের চরিত্র দেখতে বড়োজোর অনুশীলন পেতে পারে যুব দলগুলি। তাই নবসাজের যুবভারতীকে দেখতে অপেক্ষা করতে হবে আর কয়েকটা মাস।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here