জলপাইগুড়িতে ধৃত তিন পাচারকারী, উদ্ধার হাতির দাঁত-আগ্নেয়াস্ত্র

0
88

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি : বনদফতরের জালে হাতির দাঁত-সহ তিন পাচারকারী। ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে তাজা কার্তুজ-সহ অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রও। 

জলপাইগুড়ির বৈকুন্ঠপুর বনবিভাগের কাছে সূত্রের মারফত খবর আসে শিলিগুড়ি হয়ে নেপালে হাতির দাঁত পাচার করার চেষ্টা চালাচ্ছে একটি চক্র।সেই তথ্যের ভিত্তিতে ছদ্মবেশে, জাল পাতে বনদফতর। বৈকুন্ঠপুরের বেলাকোবা রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার সঞ্জয় দত্ত তাঁর দলবল নিয়ে মঙ্গলবার থেকে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালান। কিন্তু অভিযানের আগেই পালিয়ে যায় চোরাশিকারির দলটি। অবশেষে বুধবার রাতে পাক্কা খবরের ভিত্তিতে শিলিগুড়ি সংলগ্ন ফুলবাড়িতে ফাঁদ পাতেন সঞ্জয়বাবু। সফল হয় তাঁদের প্রচেষ্টা। রাতের অন্ধকারে হাতবদল করার আগেই ধরা পড়ে যায় তিন জন। তবে হাতির দাঁত কিনতে আসা দু’জন সুযোগ বুঝে পালিয়ে যায়। ধৃতদের নিয়ে বেলোকোবা রেঞ্জ অফিসে এনে রাতভর জিজ্ঞাসাবাদ চালান বনাধিকারিকরা।

hatir-dant

ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়, টুকরো করা হাতির দু’টি দাঁত, যার ওজন প্রায় দুই কিলো। ধৃতদের জেরা করে জানা গিয়েছে, তিন লক্ষ টাকায় দাঁত দু’টি হাতবদল হওয়ার কথা ছিল। এছাড়াও, ধৃতদের মধ্যে এক জনের কাছ থেকে উদ্ধার হয় একটি অত্যাধুনিক ৯ এমএম পিস্তল ও তিনটি তাজা কার্তুজ। এই ঘটনাই দুশ্চিন্তা আরও বাড়িয়েছে বনকর্তাদের। তাঁদের সন্দেহ বড় কোনো আন্তর্জাতিক পাচারচক্রের সঙ্গে জড়িত ধৃতেরা।  

প্রসঙ্গত, পাচারকারীদের কাছে অন্যতম করিডর হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপালের সীমান্তবর্তী জলপাইগুড়ি ও শিলিগুড়ি। এর আগেও সাপের বিষ, বাঘের চামড়া, গন্ডারের খড়্গ-সহ বহু চোরাশিকারি ও পাচারাকারী গ্রেফতার হয়েছে বনদফতরের হাতে। তাই ধৃতদের জেরা করে যে তথ্য মিলেছে তার ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে বনদফতর। ধৃত তিন জনকে বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হলে জামিন নামঞ্জুর করে তাদের ১৪দিনের জেলা হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here