বাণিজ্য সম্মেলনে না এসে ভালোই করেছেন গড়করি, শুরু থেকেই সার্থকতার পথে মমতার প্রচেষ্টা

0
Mamata banerjee Bengal Global Business Summit 2018

কলকাতা: রাজ্য বিজেপির কাছে এ বারের বাংলা বিশ্ব বাণিজ্য সম্মেলন নিয়ে সর্বোচ্চ আলোচ্য বিষয়টি হল, এক মাত্র তাদের কথা রাখতেই কেন্দ্রীয় সড়ক পরিহবহণমন্ত্রী নীতিন কড়করি মঙ্গলবার কলকাতায় আসেননি। কারণ তারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কোনো রকমের সহযোগিতা করতে চান না। অরুণ জেটলি বা সুরেশ প্রভুর মতো কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা সে কারণেই ফিরেও তাকালেন না বাংলার দিকে।

কিন্তু সারা রাজ্যের কাছে এ বারের এই সম্মেলনের বিবরণ এতটা সংক্ষিপ্তাকারে প্রকাশ করা সম্ভব নয়। এক নজরে দেখে নেওয়া যেতে পারে গোটা পৃথিবীর কোন কোন দেশের শিল্প প্রতিনিধিরা ইতিমধ্য়েই উপস্থিত হয়েছেন শহর কলকাতায়। ফ্রান্স, পোল্য়ান্ড, চেজ রিপাবলিক, জার্মানি, ইতালি, জাপান, চিন, দক্ষিণ কোরিয়া এবং ব্রিটেন-সহ ২৯টি দেশ অংশ নিচ্ছে এ বারের সম্মেলনে। শুধু চিন থেকেই আসছেন ৩০ জন প্রতিনিধি। এ ভাবেই দেশ-বিদেশ মিলিয়ে প্রায় ৩ হাজারটি প্রতিষ্ঠিত সংস্থার প্রতিনিধির কলকাতায় পৌঁছে যাওয়ার কথা।

ইতিমধ্য়েই কলকাতায় পৌঁছে ইতালির প্রতিনিধিরা জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁরা বাংলায় ইস্পাত ও চর্মশিল্পে বিনিয়োগে আগ্রহী। এছাড়া তাঁরা নির্দিষ্ট কয়েকটি বন্ধ শিল্পের পুনরুজ্জীবনেও বিনিয়োগ করতে রাজি। অন্য দিকে পোলান্ড রাজ্যের সম্ভাবনাময় খনিশিল্পে বিনিয়োগ করতে তারা তৈরি রয়েছে। আবার সৌদি আরব  আগেই প্রস্তাব  দিয়েছে, তারা তাজপুর বন্দরে তেল শোধনাগার করতে আগ্রহী।

বিজ্ঞাপন

দেশীয় সংস্থাগুলিও পিছিয়ে নেই। আদানি গোষ্ঠী ঘোষণা করেছে, পশ্চিমবঙ্গে সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনে তারা ১০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে। অন্য দিকে গাড়ি উৎপাদক সংস্থা হিন্দুজা গোষ্ঠীও কয়েক হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের প্রস্তাব দিয়েছে। এরই মধ্যে সোমবার জিন্দল গোষ্ঠীর শালবনি প্রকল্পের উদ্বোধন হয়ে গেল। সব মিলিয়ে এ বারের বাংলা বিশ্ব বাণিজ্য সম্মেলন যে, সাফল্য থেকে কয়েক পা মাত্র দূরে দাঁড়িয়ে ছিল, সে খবর হয়তো পৌঁছে গিয়ে থাকতে পারে গড়করির কানে।

এক তৃণমূল নেতা বলেন, দুবাই মাল্টি কমোডিটির দর্শন হিরান্দানি বা রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের মুকেশ আম্বানি বাংলায় বিনিয়োগের কথা ঘোষণা করছেন আর দর্শকাসনে বসে সে কথা শুনছেন গড়করি! সেটা কি তাঁর পক্ষে হজম করা সম্ভব হতো?

বিজ্ঞাপন
loading...