বীরভূমের গ্রামে পুজো বন্ধ নিয়ে হিন্দুত্ববাদীদের অপপ্রচার

0
149

মিথ্যার চেয়ে অর্ধসত্য ভয়ঙ্কর। এই কথাটা বহুদিন ধরেই চালু। সেই পথ ধরেই বীরভূমের গ্রামে পুজো ঘিরে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা তৈরি করছে বিভিন্ন হিন্দুত্ববাদী সংগঠন।

বীরভূমের নলহাটি শহর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরের কাংলাপাহাড়ি গ্রাম নিয়ে গত একমাস ধরেই সরগরম সংবাদমাধ্যম। খবর হল,   ওই গ্রামে হিন্দুদের সংখ্যা বেশি এবং গ্রামের কিছু সংখ্যক মুসলমানদের চাপে প্রশাসন তাদের দুর্গাপুজো করতে দিচ্ছে না। খবরটা সত্য কিন্তু অর্ধেকটা। আসল ঘটনা হল, গত শতকের সাতের দশক থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক অংশের চাপে প্রশাসন ওই গ্রামে বকর ঈদ উৎসব পালন করায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। সেই নিষেধাজ্ঞা এখনো বলবৎ। ফলে গত চার দশক ধরে গ্রামের মুসমলানদের কুরবানির ঈদ পালন করতে হয় পাশের গ্রামে গিয়ে। ফি বছর সেই মর্মে থানায় মুচলেকাও দিতে হয়। তিন বছর আগে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক অংশ যখন ঐ গ্রামে দূর্গাপুজো করবে ঠিক করে তখন মুসলমান ঘরগুলির এক অংশ বলে যদি ঈদ করায় সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকে তবে দুর্গাপুজোতেও তা থাকতে হবে। ইতিহাস উল্লেখ না করে সেই অংশটুকু সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে এখন আরএসএস ও হিন্দু সংহতির সদস্যরা গ্রামে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে বলে অভিযোগ। আরএসএস-এর দাবি দুর্গাপুজো করতে দিতে হবে কিন্তু বকর ঈদ করতে দেওয়া চলবে না। বিষয়টি গড়িয়েছে হাইকোর্ট পর্যন্ত। শুনানি রয়েছে ৩ অক্টোবর। 

এই পরিস্থিতিতে এলাকায় যাতে দুটি উৎসবই পালন করা যায়, তার জন্য উদ্যোগী হয়েছে ‘রাইট টু লাইফ’ নামে একটি সংগঠন। শনিবার কাংলাপাহাড়ি গিয়ে দুই সম্প্রদায়ের মানুষের সঙ্গে আলোচনা শান্তি ফেরাতে চান তারা।

ভয় একটাই, রাইট টু লাইফের সদস্যদের আক্রমণ করতে পারে আরএসএস-এর সদস্যরা। 

 

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here