চিঠি বিতর্ক: রাজ্যপালের এক্তিয়ার নিয়ে প্রশ্ন তুলে তৃণমূল বলছে, শেষ দেখে ছাড়বে!

0
vidhan sabha

কলকাতা: বুধবার রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গে সংঘাতের পথে আরও কয়েক কদম এগোল রাজ্য সরকার। গত মঙ্গলবার সংসদের উচ্চকক্ষে এই বিতর্কে সমস্ত বিরোধী রাজনৈতিক দল অধিবেশন বয়কট করার পর বুধবার তার ঢেউ আছড়ে পড়ল বাংলার বিধানসভাতেও। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বিধানসভায় বলেন, চিঠি-বিতর্ক কেন্দ্রের সঙ্গে আঁতাঁতের মাধ্যমেই সৃষ্টি করেছেন রাজ্যপাল। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোয় এই ধরনের লজ্জাজনক ঘটনাকে কখনোই প্রশ্রয় দেওয়া হবে না।

পার্থবাবু বলেন, এক্তিয়ার বহির্ভুত কাজ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় তিনি এ ভাবে মুখ্যমন্ত্রীর সমান্তরাল প্রশাসন গড়ে নিজের সম্মানীয় পদকেই কলঙ্কিত করলেন বলে মনে করে তৃণমূল কংগ্রেস।

যদিও তৃণমূলের এই যুক্তিকে মানতে নারাজ বিজেপি। দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, রাজ্যপাল কোনো ধরনের সংবিধান বহির্ভূত কাজ করেননি।

বিজ্ঞাপন

তবে দিলীপবাবু যাই বলুন, দেশের প্রতিটি বিরোধী রাজনৈতিক দলই যে এ বিষয়ে কট্টর অবস্থান নিয়ে ফেলেছে, গত মঙ্গলবার রাজ্যসভার অধিবেশনেই তা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ব্রায়েন জানিয়েছেন, রাজ্যপালের এই চিঠি নিয়ে যতক্ষণ না বিশেষ আলোচনা সভা বসছে, ততক্ষণ তাঁরা প্রতিবাদ করে যাবেন। স্বাভাবিক ভাবে এই ইস্যুতে অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলির সমর্থন আদায় করে নেওয়ায় তৃণমূলের পাল্লা আরও ভারী হয়েছে।

তবে নয়াদিল্লিতে এই ইস্যুতে জাতীয় কংগ্রেস তৃণমূলকে উদার ভাবে সমর্থন জানালেও প্রদেশ কংগ্রেসের তরফে কিছুটা তির্যক মন্তব্য করে বলা হয়েছে, বৈঠকে গেলেই তো বোঝা যাবে রাজ্যপাল কেন ডেকেছেন? কিন্তু প্রদেশ কংগ্রেস যাই বলুক, তৃণমূল যে এর শেষ দেখে ছাড়বে, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন পার্থবাবু।

আরও পড়ুন: রাজ্যপালের ‘চিঠি’ নিয়ে তৃণমূলের প্রতিবাদে উত্তাল রাজ্যসভা, অধিবেশন বয়কট বিরোধীদের

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here