বাংলা মাধ্যমের পড়ুয়াদের জন্য প্রেসিডেন্সিতে ‘স্পোকেন ইংলিশ’ ক্লাস

0
138

কলকাতা : অধ্যাপকদের লেকচার ঠিকঠাক বুঝতে বাংলা মাধ্যমের ছাত্রছাত্রীদের জন্য বিশেষ ‘স্পোকেন ইংলিশ’-এর ক্লাসের ব্যবস্থা হচ্ছে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে।

দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ ছিল, প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা ভর্তি হয়, তাদের অনেকেই বাংলা মাধ্যম থেকে আসে। এদের মধ্যে অনেকেই ক্লাসে অধ্যাপকদের ইংরিজিতে পড়ানো বুঝতে পারে না এবং পারে না বলে ক্লাসের প্রতি তাদের আগ্রহ কমে যায়। তার প্রভাব পড়ে পঠনপাঠনে এবং প্রেসিডেন্সির মানের ক্ষেত্রেও তার প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। এ ছাড়া ছাত্রছাত্রীদের অভিযোগ ছিল, ইংরিজিতে কথা বলায় দক্ষতা না থাকায় তারা রাজ্যের অন্য ছাত্রছাত্রীদের তুলনায় পিছিয়ে পড়ছে। এই অভিযোগের সুরাহা করতেই ‘স্পোকেন ইংলিশ’-এর ক্লাস চালু হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের ডিন অরবিন্দ নায়ক বলেন, আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে এই বিশেষ ক্লাস চালু হচ্ছে। যারা এই ক্লাস করতে চাইবে, তাদের আলাদা ভাবে আবেদন করতে হবে। তার ভিত্তিতেই ক্লাস শুরুর ঠিক আগে ছাত্রছাত্রীদের ইংরিজিতে কথোপকথনের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রথম তিন মাস নিয়মিত এই ক্লাস হবে। পরে ছাত্রছাত্রীরা চাইলে ক্লাসের মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে। অধ্যাপক নায়ক জানান, পড়ুয়ার সংখ্যা বেশি হলে গ্রুপভিত্তিক আলাদা ক্লাস করানো হবে। ক্লাসে পড়ুয়ার সংখ্যা কম হলেও চিন্তা নেই। তাদেরও যত্ন করেই ইংরিজি শেখানো হবে। পুরো বিষয়টি দেখাশোনা করতে ডিনদের নিয়ে একটি কমিটি গড়া হয়েছে।

বাংলা মাধ্যমের ছাত্রছাত্রীদের কথা ভেবে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ অধ্যাপকদের বাংলায় ক্লাস নেওয়ার ব্যাপারে দাবি জানিয়ে আসছিল। প্রেসিডেন্সি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, শিক্ষার আন্তর্জাতিকীকরণের যুগে এই দাবি মানা সম্ভব নয়। পাশাপাশি, প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি অনুযায়ী অধ্যাপকরা বাংলায় পড়াতে পারেন না। ছাত্রছাত্রীদের ওই দাবি মানা সম্ভব নয় বলেই ‘স্পোকেন ইংলিশ’-এর ক্লাসের ব্যবস্থা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইআইটি-কে মডেল হিসাবে ধরা হয়েছে। সেখানেও ‘স্পোকেন ইংলিশ’-এর ক্লাসের মাধ্যমে ইংরিজি শেখানো হচ্ছে।

ছাত্র সংসদ আরও দাবি করেছিল, ইংরিজির পাশাপাশি বাংলাতেও যেন এমসিকিউ (মাল্টিপল চয়েস কোয়েশ্চেন) থাকে। এই দাবি অবশ্য মেনে নেওয়া হয়েছে। প্রতি বছর জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রী ভর্তি নেয় প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়। জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ড পরীক্ষার ফি বাড়িয়েছে। ছাত্র সংসদের দাবি, পরীক্ষার ফি যেন কমানো হয়। তা ছাড়া জেলায় পরীক্ষাকেন্দ্রের সংখ্যা যেন বাড়ানো হয়। এ প্রসঙ্গে অরবিন্দবাবু বলেন, “বাংলায় প্রশ্নপত্র চালু করা ছাড়া এই মুহূর্তে কোনো দাবি মানা সম্ভব নয়।” জানা গিয়েছে, পরীক্ষাকেন্দ্রের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য বোর্ডকে অনুরোধ করা হয়েছে। আরও জানা গিয়েছে, গত বছর অনলাইন ভর্তির পরীক্ষায় সমস্যা হয়েছিল। তাই এ বার প্রেসিডেন্সিতে ভর্তির পরীক্ষা অফলাইনে ওএমআর (অপটিক্যাল মার্ক রিকগনিশন) মাধ্যমেই হবে। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এ বছর ভর্তির পরীক্ষা হবে এপ্রিলের শেষে বা মে-র শুরুতে।     

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here