ভোটের ঠেলা: ঝুলে রইল সরস্বতী পুজোর ভবিষ্যৎ

0
saraswati puja in tehatta high school, uluberia

কলকাতা: তিনি হিন্দুধর্মের বিদ্যা ও সঙ্গীতের দেবী। ফলে তাঁর আরাধনা বিদ্যালয়ে হবে না, সে আবার কেমন কথা! কিন্তু ওই যে ভো‌টের ঠেলা। আগামী ২৯ জানুয়ারি উলুবেড়িয়া লোকসভা আসনে হতে চলেছে উপনির্বাচন। যে কারণে আসছে সরস্বতী পুজোর দিনই ওই স্কুলটি দখলে চলে যাবে নির্বাচন কমিশনের। এক দিকে ভোটের কর্মী, নিরাপত্তা বাহিনী আর অন্য দিকে হংসবাহিনীর আরাধনা তো একই সঙ্গে সম্ভব নয়।

স্বাভাবিক ভাবেই তেহ‌ট্ট হাইস্কুলের বিদ্যালয় পরিচালন সমিতি আসছে রবিবারই স্থির করতে চলছে দেবী সারদার আরাধনার দিনক্ষণ।

শাস্ত্রীয় বিধান অনুসারে মাঘ মাসের শুক্লা পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতীর আরাধনা হয়। তিথিটি শ্রীপঞ্চমী বা বসন্ত পঞ্চমী নামেও পরিচিত।

বিজ্ঞাপন

তবে কয়েকশো বছর আগেও এই রীতি ছিল একটু অন্য রকম। জানা যায়,  ঊনবিংশ শতাব্দীতে পাঠশালায় প্রতি মাসের শুক্লা পঞ্চমী তিথিতে ধোয়া চৌকির উপর তালপাতার তাড়ি ও দোয়াতকলম রেখে পূজা করার প্রথা ছিল।

দিন বদলেছে, বদলেছে নিয়মও। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিক থেকেই আধুনিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সরস্বতী পূজার প্রচলন হয় বেশ জাঁকজমকের সঙ্গেই। তবে বছরে ওই এক দিনই।

উলুবেড়িয়ার ওই বিদ্যালয়‌টিতে অবশ্য সরস্বতী পুজো নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছে গত বছর দুয়েক ধরেই। গত বছরও বেশ কিছু বিতর্কিত ঘটনার শিকার হয়ে সরস্বতী পুজো নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় বিদ্যালয় পরিচালন সমিতিকে। সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ জানেন সে সব ঘটনার কথা। পুলিশ দাঁড় করিয়ে রেখে পুজো সারতে হয় পরিস্থিতির চাপে। এ বারও সেই চাপ একেবারেই নেই বললে ভুল হবে। তবে এ বার যে তারা কোনো মতেই বিদ্যাদেবীর আরাধনা বন্ধ করবে না, সে বিষয়ে পাকা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে গিয়েছে। তবে পুজোর দিনক্ষণ নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনো অফিসিয়াল বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়নি।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here