সিপিএমের জেলা সম্মেলনের প্রকাশ্য মঞ্চে ‘পদ্মাবত’ নিয়ে বিজেপি-কে বিঁধলেন সূর্যকান্ত

0
suryakanta mishra CPIM
ঝাড়গ্রাম
Samir mahat
সমীর মাহাত

সিপিএমের দু’দিনের ঝাড়গ্রাম জেলা সম্মেলন শেষ হল রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্রের প্রকাশ্য সমাবেশের মধ্যে দিয়ে। জেলার  প্রায় ২৫০ জন প্রতিনিধি নিয়ে ঝাড়গ্রাম জেলার প্রথম সম্মেলন শুরু হয়েছিল গত বৃহস্পতিবার। ঝাড়গ্রামের মানিকপাড়ায় আয়োজিত হয় এই দলীয় সম্মেলন।

সম্মেলনের শুরুতে প্রায় সাত শতাধিক কর্মী-সমর্থকের একটি  সুসজ্জিত  মিছিল নিয়ে শোভাযাত্রা বের করে সিপিএম। ওই মিছিলে উপস্থিত ছিলেন মদন ঘোষ, দীপক সরকার, হরেকৃষ্ণ সামন্ত, তরুণ রায়, ডহরেশ্বর সেন, পুলিনবিহারী বাস্কে, প্রদীপ সরকারের মতো উচ্চ নেতৃত্ব। শুক্রবার  মানিকপাড়ার নেতাজি সংঘের মাঠে  সূর্যকান্ত মিশ্রের সমাবেশের মধ্যে দিয়ে ঝাড়গ্রাম জেলার প্রথম সম্মেলনের কর্মসূচি শেষ হল।

গোটা রাজ্যে বামেদের যে অবস্থা জঙ্গলমহলের কেন্দ্রবিন্দু ঝাড়গ্রাম তার ব্যতিক্রম নয়। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, লালগড় মডেলের হাত ধরেই রাজ্যে পালা বদল,তাই বাম-সহ অন্যান্য বিরোধীদের সবার নজর এখন জঙ্গলমহলে।

বিজ্ঞাপন

দলের উচ্চনেতৃত্বের বিবাদ প্রসঙ্গে সূর্যকান্ত মিশ্র কর্মীদের বলেন, ‘উপরের কোনো বিষয়ে অর্থাৎ কেন্দ্রীয় কমিটি বা রাজ্য কমিটির আলোচনা নিয়ে মাথা ঘামাবেন না, কান দেবেন না। বিজেপি-বিরোধী অবস্থান নিয়ে দলে কোনো মতপার্থক্য নেই। একমাত্র লক্ষ্য বিজেপিকে উচ্ছেদ করা। সংবাদ মাধ্যম যা খুশি বলুক।’

surya kanta mishra

‘পদ্মাবত’ প্রসঙ্গে সূর্যকান্ত মিশ্রর বক্তব্য, বিজেপি ভয় পেয়ে গেছে। এদের চালিকাশক্তি অারএসএস। বিজেপি শাসিত রাজ্যে অারএসএস বড় বিপদ। ‘পদ্মাবত’ নিয়ে যে তাণ্ডব চলছে তাকে প্রশাসনিক গাফিলতি বললে ভুল হবে। এটা পরিকল্পিত ভাবে করার চেষ্টা হচ্ছে।

ঝাড়গ্রামের মানিকপাড়া এলাকায় ঝাড়গ্রাম জেলার প্রথম সম্মেলনের সমাবেশে রাজ্যসম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র ছাড়াও মদন ঘোষ, দীপক সরকার সহ জেলা নেতৃত্ত্ব উপস্থিত ছিলেন। ঝাড়গ্রাম জেলার সম্পাদক ডহরেশ্বরসেনকে সরিয়ে পুলিনবিহারী বাস্কেকে নতুন সম্পাদক নিয়োগ করা হয়। যা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও রাজ্য সম্পাদক তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে নিয়ে আসার কারণেই যে  এই সিদ্ধান্ত, তা স্পষ্ট করে দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here