বৈদ্যুতিন কৃষি বাজারে অংশগ্রহণের আগ্রহ দেখাচ্ছে বাংলা, জট খুলতে তৎপর কেন্দ্র

0
340
e-nam-west-bengal

কলকাতা: রাষ্ট্রীয় কৃষি বাজারের ইলেক্ট্রনিক্স পরিষেবার সুবিধা নিতে আগ্রহ দেখাল পশ্চিমবঙ্গ। গত ২০১৬-তে কৃষিমন্ত্রকের উদ্যোগে চালু হয় এই ইলেক্ট্রনিক্স ন্যাশনাল এগ্রিকালচার মার্কেট বা সংক্ষেপে ই-নাম। এই ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমে অগ্রিকালচার প্রডিউস মার্কেট কমিটি (এপিএমসি)-র নির্দেশিকা মেনেই কৃষি পণ্যের ব্যবসায়ী, কমিশন এজেন্ট বা কৃষক নিজেই নিজস্ব পণ্য বিক্রি করতে পারেন। তবে এ ক্ষেত্রে সশরীরে উপস্থিত হওয়ার দরকার না পড়লেও সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারের অনুমোদনের প্রয়োজন রয়েছে। তবে রাজ্যের তরফে এ বিষয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই আগ্রহ প্রকাশ করা হলেও এপিএমসি সংক্রান্ত জটিলতায় এখনও পর্যন্ত পোর্টালের সুবিধা পাচ্ছেন না রাজ্যের কৃষকরা।

গত প্রায় দু’বছরে দেশের ১৪‌টি রাজ্য ই-নামে নাম লিখিয়েছে। অন্ধ্রপদেশ, ছত্তীসগঢ়, গুজরাত, হরিয়ানা, হিমাচলপ্রদেশ, ঝাড়খণ্ড, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, ওড়িশা, রাজস্থান, তামিলনাড়ু, তেলেঙ্গানা, উত্তরপ্রদেশ এবং উত্তরাখণ্ড মিলিয়ে এ মুহূর্তে মো‌ ৭২.১২ লক্ষ কৃষক, ৫৩,১৩০ কমিশন এজেন্ট এবং ১ লক্ষ ব্যবসায়ী নাম নথিভুক্ত করিয়েছেন ওই পোর্টালে। এ বার পশ্চিমবঙ্গ-সহ পাঞ্জাব, কেরল, চণ্ডীগড় এবং পুদুচেরিও আগ্রহ দেখাল।

এ বিষয়ে ১৭টি আবেদন জমা পড়লেও বাংলায় ই-নাম মান্ডি পরিষেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছিল না। সেই সমস্যা মিটে গেলেই পশ্চিমবঙ্গের নামও পোর্টালে জুড়ে যাওয়া শুধু সময়ের অপেক্ষামাত্র।

ইনাম পোর্টালের গ্রহণযোগ্যতা দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। কারণ এই একটি মঞ্চেই মাধ্যমেই এপিএমসি-র যাবতীয় তথ্য খুব কম সময়ের মধ্যেই জেনে ফেলা সম্ভব। নিত্য দিন কৃষি পণ্যের দাম ও‌ঠা-নামা থেকে শুরু করে তা বাজারজাত করার সহজ সুবিধা রয়েছে এখানে। এবং এর সব থেকে বড় সুবিধা অনলাইনে ক্রয়-বিক্রয় করার সুবিধা থাকায় লেনদেন-সহ আনুষঙ্গিক সমস্ত খরচই লাঘব হয়। কোনও অংশগ্রহণকারীর একটি মাত্র লাইসেন্সের মাধ্যমেই সারা রাজ্যে ক্রয়-বিক্রয় সম্ভব এই পোর্টালে। এ ছাড়া মাটি পরীক্ষা-সহ একাধিক সুযোগ-সুবিধা সরাসরি নিতে পারেন নথিভুক্ত কোনো কৃষক। মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে এই পোর্টালে খুব সহজেই নাম নথিভুক্তিকরণ এবং পরিষেবা গ্রহণ সম্ভব।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরেই কৃষি মন্ত্রক জানিয়েছিল, পশ্চিমবঙ্গের এপিএমসি আইনে নির্দিষ্ট পরিবর্তন ছাড়া রাজ্যকে অন্তর্ভুক্ত করা সম্ভব নয়। ফলে এ বিষয়ে ১৭টি আবেদন জমা পড়লেও বাংলায় ই-নাম মান্ডি পরিষেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছিল না। সেই সমস্যা মিটে গেলেই পশ্চিমবঙ্গের নামও পোর্টালে জুড়ে যাওয়া শুধু সময়ের অপেক্ষামাত্র। কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী রাধামোহন সিংহ স্বয়ং জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে জট খুলতে কেন্দ্রও সমানভাবে আগ্রহী।

বিজ্ঞাপন
loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here