ঝাড়খণ্ডকে শেষ আটে তুলে পারভেজদের পরামর্শদাতা হলেন ধোনি

0
112

সানি চক্রবর্তী:

ম্যাচ শেষের পরে ক্রিজেই দাঁড়িয়ে প্রস্তাবটা দিয়েছিলেন পারভেজ রসুল। হাসিমুখে এক কথায় তা মেনেও নিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। ছক্কা মেরে ঝাড়খণ্ডকে জেতানোর কয়েক মুহূর্ত পরেই মাহিভাইকে পাওয়া গেল জম্মু ও কাশ্মীরের ড্রেসিংরুমে। প্রত্যেক খেলোয়াড়ের সঙ্গে কথা বললেন, আলাদা আলাদা করে পরামর্শ দিলেন, পরে প্রতিপক্ষ জুনিয়ার ক্রিকেটারদের আবদারে তাঁদের সঙ্গে সেলফিও তুললেন এমএস। আসলে জম্মু ও কাশ্মীরের অধিনায়ক পারভেজ রসুল তাঁর দলের ছেলেদের ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন জাতীয় দলের সিনিয়রের কাছে। ধোনির থেকে পরামর্শ পেতে মুখিয়ে আছেন জম্মুর ছেলেরাও, শুনেই এক বাক্যে রাজি মাহিও। সাজঘরে ফিরে ব্যাটিংয়ের সরঞ্জাম খুলে রেখেই ঢুকে পড়লেন প্রতিপক্ষের ড্রেসিংরুমে। যে সম্পর্কে পারভেজ বলছিলেন, “মাহিভাই ক্রিকেটের ব্যাপারে সব সময় সাহায্য করেন। তাই হাতের সামনে তাঁকে পেয়ে কিছু পরামর্শ নেওয়ার সুযোগ ছাড়তে চায়নি দলের ছেলেরা। ধোনিকে সে কথা বলতেই সঙ্গে সঙ্গে রাজি হয়ে গেলেন।” ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি উইকেটকিপিংয়ের টিপস দিয়েছেন ধোনি। ধোনিভক্ত জম্মুর রিজার্ভ কিপার রমন থাপলু বলছিলেন, “আমাদের মতো তরুণ ক্রিকেটারদের কাছে দারুণ ব্যাপার। এত দিন ধোনিকে টেলিভিশনের পর্দাতেই দেখেছি। সামনে পেয়ে অনেক প্রশ্নের উত্তর জানলাম সবাই।” কয়েক বছর আগে ওয়াংখেড়েতে ঠিক এ ভাবেই সচিন তেন্ডুলকর জম্মু ও কাশ্মীরের ড্রেসিংরুমে গিয়ে তরুণ ক্রিকেটারদের উৎসাহ জুগিয়েছিলেন।

ধোনির ক্যারিশমায় শুধু বিপক্ষের ক্রিকেটারটাই নন, আক্রান্ত হয়েছিলেন কল্যাণীবাসীও। আগের দিনের মতো এ দিনও ঝাড়খণ্ডের ব্যাটসম্যানদের দাপটে এক সময় মনে হচ্ছিল হয়তো ব্যাটসম্যান ধোনির ছটা থেকেই বঞ্চিতই থেকে যাবে শিল্পনগরী। ৩১তম ওভারে তাঁদের ২টো উইকেট পড়ায় যদিও শেষ দিকে কিছুটা সময় ক্রিজে নামেন ধোনি। ছয় মেরে জেতানো ছাড়া ২টি বাউন্ডারি-সহ ১৭ বলে ১৯ রানের ইনিংস খেলেন। আগে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১৮৪ রানেই গুটিয়ে গিয়েছিল জম্মু ও কাশ্মীর। তাই জিততে বেশি কাঠখড় পোড়াতে হয়নি ধোনিকে। ৬ উইকেটে ম্যাচ জেতেন তাঁরা। এ দিকে এ দিন জিতে বিজয় হাজারে ট্রফির কোয়ার্টার ফাইনালে স্থান পাকা করে নিল ঝাড়খণ্ড। ইডেনে হায়দরাবাদ পরপর দু’টো ম্যাচে হেরে বসায় সমসংখ্যক পয়েন্ট পেয়েও বেশি রান রেটের সৌজন্যে শেষ আটে স্থান করে নিয়েছে তারা। গ্রুপ ডি রানার্স হয়ে নকআউট পর্বে উঠল। শেষ আটে তাদের লড়তে হবে গ্রুপ এ-র চ্যাম্পিয়ন বিদর্ভের সঙ্গে।

অন্য দিকে, গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে গুজরাতের কাছে হেরে গেলেও গ্রুপ সি- চ্যাম্পিয়ন হয়েই শেষ আটে স্থান করে নিয়েছে বাংলা দল। চোট সারিয়ে ফিরে এ দিন কোনো উইকেট না পেলেও ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন মহম্মদ সামি। কোয়ার্টারে মনোজদের লড়তে হবে কেদার যাদবের নেতৃত্বাধীন মহারাষ্ট্রের সঙ্গে।

এক নজরে বিজয় হাজারে ট্রফির কোয়ার্টার ফাইনাল —

১৩ মার্চ

তামিলনাড়ু (গ্রুপ বি চ্যাম্পিয়ন) বনাম গুজরাত (গ্রুপ সি রানার্স)

কর্নাটক (গ্রুপ ডি চ্যাম্পিয়ন) বনাম বরোদা (গ্রুপ এ রানার্স)

১৪ মার্চ

বিদর্ভ (গ্রুপ এ চ্যাম্পিয়ন) বনাম ঝাড়খণ্ড (গ্রুপ ডি রানার্স)

বাংলা (গ্রুপ সি চ্যাম্পিয়ন) বনাম মহারাষ্ট্র (গ্রুপ বি রানার্স)

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here