খবর অনলাইন: ইকুয়েডরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ২৭২। আহত হয়েছে অন্তত ২৫০০ জন। দেশের ভাইস প্রেসিডেন্ট দিয়েগো ফুয়েন্তেস এই খবর দিয়ে বলেন, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। গতকাল থেকে শুরু করে এখনও ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করার কাজ চলছে। ভ্যাটিকান সফর শেষ করে দেশে ফিরে প্রেসিডেন্ট রাফায়েল কোরিয়া উদ্ধারকাজে ঝাঁপিয়ে পড়েন। কোরিয়া বলেছেন, মনে হচ্ছে ধ্বংসস্তূপের মধ্যে অনেকেই জীবিত অবস্থায় রয়েছেন।
ইকুয়েডরে ৭.৮ রিখটার স্কেলের এই ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল রাজধানী কিটোর ১০৫ কিলোমিটার উত্তরপশ্চিমে জনবিরল সৈকত অঞ্চলে। ১৯৭৯ সালের পর এত বড়ো মাপের ভূমিকম্প ইকুয়েডরে আর কখনও হয়নি। উপকূল অঞ্চল থেকে মাত্র ১৫ কিলোমিটার দূরে পর্তোবিখো শহরে একটি জেলের দেওয়াল ভেঙে পড়লে ১০০ বন্দি পালিয়ে যায়। পরে কাউকে কাউকে ধরা হয়েছে, তবে বেশির ভাগই পলাতক।
প্রেসিডেন্টও জানিয়েছেন, মৃতের সংখ্যা অনেক বাড়তে পারে। সব চেয়ে বিধ্বস্ত শহর পেদেরনালেস-এর মেয়র গাব্রিয়েল আলসিবার বলেছেন, এই শহরে অনেক হোটেলও ভেঙে পড়েছে। ধ্বংসস্তূপে অনেকেই আটকে আছেন। শুধুমাত্র এই শহরেই মৃতের সংখ্যা ৪০০ ছাড়িয়ে যেতে পারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here