খবর অনলাইন: ঘরে এক ফোঁটা জল নেই। তাই স্কুল ছুটির পর পাড়ার অন্যদের সঙ্গে জল আনতে বেরিয়েছিল বছর দশেকের যোগিতা। জল নিয়ে আর বাড়ি ফেরা হল না তার। প্রচন্ড গরমে হিট স্ট্রোক হয়ে পথেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে যায় সে। পাড়ার লোকেরা ধরাধরি করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

মহারাষ্ট্রের বিড জেলা খরায় ফুটিফাটা। সেই জেলার সবলখেদ গ্রামে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী যোগিতা অশোক দেশাইয়ের বাড়ি। ঘটনার পর থেকে শোকে পাথর তার পরিবারের সদস্যরা।

এক মাস আগেই বিড জেলারই পিমপল গ্রামের এক বছর দশেকের মেয়ে জল আনতে গিয়ে পাতকুয়ায় পড়ে মারা যায়।

বিড খরাকবলিত মারাঠাওয়াড়া অঞ্চলের একটি জেলা। ত্রাণ দফতরের হিসাব অনুযায়ী খরা মোকাবিলায় এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত দু’হাজারেরও বেশি জলের ট্যাঙ্কার পাঠানো হয়েছে। খরার জন্য  চাষেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

হাওয়া অফিস ভরা বর্ষার পূর্বাভাস দিয়েছে। কিন্তু, খরার ফলে যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা কি আদৌ পূরণ করা সম্ভব হবে, সেই প্রশ্ন এখন চাষিদের মুখে মুখে। ফুটিফাটা চাষের জমির দিকে চেয়ে চোখের জল ফেলতেও ভয় পাচ্ছেন তাঁরা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here