খবর অনলাইন: প্রতি দু’-তিন জন ছাত্রপিছু এক জন করে নিরাপত্তারক্ষী। তা-ও আবার পুলিশ নয়, একেবারে আধাসেনা। শ্রীনগর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির (এনআইটি) ক্যাম্পাসের অবস্থাটা এমনই। প্রতিষ্ঠানের ১৫০০ ছাত্রের জন্য ৬০০ আধা সেনা। ছাত্রদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্যই এমন ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে।
টি-২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ভারত হেরে যাওয়ার পরই এনআইটি ক্যাম্পাসে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। সেখানে এক দল ছাত্র ওয়েস্ট ইন্ডিজের জয়কে পালন করে বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ এলে অভিযোগ ওঠে তারা ভিন রাজ্য থেকে পড়তে আসা ছাত্রদেরই মারধর করে। দু’ দফায় ক্যাম্পাসে উত্তেজনা তৈরি হয়। ক্যাম্পাসের উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দু’ কোম্পানি সিআরপিএফ এবং তিন কোম্পানি সশস্ত্র সীমা বলের জওয়ান আসে।
এই ঘটনার পর এনআইটি হল দেশের মধ্যে প্রথম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যার নিরাপত্তার জন্য আধাসেনা নিয়োগ করা হল। কাশ্মীরের উপ-মুখ্যমন্ত্রী নির্মল সিং জানিয়েছেন, “ছাত্র এবং অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছিল। আমরা প্রত্যেকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছি।”
জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ন্যাশনাল কনফারেন্সের নেতা ওমর আবদুল্লা অভিযোগ করেছেন, আরএসএস-এর ‘অঙ্গুলি হেলনেই’ ক্যাম্পাসে পুলিশের বদলে সিআরপিএফ দিয়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঘটনার পর আরএসএস জম্মু-কাশ্মীরের পুলিশকে ‘পক্ষপাতদুষ্ট’ বলে অভিযোগ করে।


মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here