খবর অনলাইন: চোরাশিকারিরা এই সময়টার অপেক্ষাতেই ছিল। যখন বনের  কর্তাব্যক্তি থেকে শুরু করে রক্ষীরা রাজ-অতিথিযুগলের আপ্যায়নে ব্যস্ত, ঠিক সেই সময়েই একে ৪৭-এর বুলেটে একটা পুরুষ গণ্ডারকে ঝাঁঝরা করে তার শৃঙ্গটা নিয়ে পালাল চোরাশিকারিরা। এই ঘটনা যখন ঘটছে তখন ঘটনাস্থল থেকে মাত্র ৩০ কিমি দূরে অবস্থান করছেন প্রিন্স উইলিয়াম আর কেট মিডলটন। মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটেছে বুধবার রাত ১১-১০-এ, কাজিরাঙা ন্যাশনাল পার্কে।

মজার কথা হল, বনরক্ষীরা কী ভাবে চোরাশিকারিদের মোকাবিলা করে তা  কাজিরাঙার সেন্টার ফর ওয়াইল্ডলাইফ রিহ্যাবিলিটেশন অ্যান্ড কনজারভেশন-এ বসে দুই অতিথিকে বুধবার সকালেই বুঝিয়েছিলেন বনকর্তারা। তার পর বাগরি ফরেস্ট রেঞ্জে দু’ ঘণ্টার জিপ সাফারি করেন অতিথিরা। সে দিনই রাতে বাগরি সংলগ্ন বুরাপাহাড় ফরেস্ট রেঞ্জে ঘটল চোরাশিকারের ঘটনা। রাজদম্পতি তখন রাত কাটাচ্ছেন ন্যাশনাল পার্ক সংলগ্ন রিভারসাইড লজে।

কাজিরাঙার ডিভিশনাল ফরেস্ট অফিসার শুভাশিস দাস জানান, “ঘটনাস্থল থেকে একে ৪৭-এর ৮৮টি খালি কার্তুজ পাওয়া গিয়েছে।” স্থানীয় বাজারে গণ্ডারের একটি শৃঙ্গের দাম ৫ লক্ষ টাকা এবং সেই শৃঙ্গ যখন চোরাপথে চিন আর ভিয়েতনামে পৌঁছে যায় তখন তার দাম উঠে যায় ২০ লক্ষ টাকায়। এ বছরের মাত্র সাড়ে তিন মাসে ৭টি গণ্ডার খুন হল কাজিরাঙায়। ২০১৫-তে এই সংখ্যা ছিল ১৭।


মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here